| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
   * শ্রীপুরে ট্রেনের নিচে বাবা-মেয়ে আত্মাহুতির ঘটনায় গ্রেফতার-১   * রাম নাথ কোভিন্দকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন   * টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে : স্পিকার   * বিএনপির লন্ডন মার্কা সহায়ক সরকার জনগণ মানবে না : ওবায়দুল কাদের   * শিগগিরই বিচারকদের শৃঙ্খলা বিধির গেজেট: আইনমন্ত্রী   * নির্বাচন কমিশনের সচিব পরিবর্তন   * সরকার মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায় : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী   * চিকুনগুনিয়া রোগীর বাড়ি গিয়ে চিকিৎসা দেবে ঢাকা দক্ষিণ সিটি   * ‘আকাশ সংস্কৃতিতে যা ক্ষতিকর তা বর্জন করুন’   * সবার সহযো‌গিতায় দুর্যোগ মোকা‌বিলা : ত্রাণমন্ত্রী  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
রাম নাথ কোভিন্দকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

অনলাইন ডেস্ক :
ভারতের ১৪তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ায় রাম নাথ কোভিন্দকে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইংয়ের থেকে দেয়া এক প্রেস রিলিজে এ কথা জানানো হয়েছে।
 
ভারতের নবনির্বাচিত রাষ্ট্রপতিকে দেয়া অভিনন্দন বার্তায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভারতীয় প্রজাতন্ত্রের সর্বোচ্চ কার্যালয়ে নির্বাচিত হওয়ায় বাংলাদেশ সরকার ও জনগণ এবং আমার নিজের পক্ষ থেকে আপনাকে আন্তরিক অভিনন্দন। বাংলাদেশ ও ভারতের সম্পর্ক সাংস্কৃতিক, ঐতিহাসিক ও সভ্যতার মিলের বন্ধনের ভিত্তিতে বাংলাদেশ ও ভারতের সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত। এই সম্পর্কের ভিত্তিতে আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেছি। দুই দেশের জনগণের উন্নতি অর্জনের লক্ষ্যে আমরা  ভারত সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক বিভিন্ন প্রেক্ষিতে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে চায়।
 
প্রধানমন্ত্রী ভারতের নবনির্বাচিত রাষ্ট্রপতির সফলতা কামনা করে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ করেন।
রাম নাথ কোভিন্দকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন
                                  
অনলাইন ডেস্ক :
ভারতের ১৪তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ায় রাম নাথ কোভিন্দকে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইংয়ের থেকে দেয়া এক প্রেস রিলিজে এ কথা জানানো হয়েছে।
 
ভারতের নবনির্বাচিত রাষ্ট্রপতিকে দেয়া অভিনন্দন বার্তায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভারতীয় প্রজাতন্ত্রের সর্বোচ্চ কার্যালয়ে নির্বাচিত হওয়ায় বাংলাদেশ সরকার ও জনগণ এবং আমার নিজের পক্ষ থেকে আপনাকে আন্তরিক অভিনন্দন। বাংলাদেশ ও ভারতের সম্পর্ক সাংস্কৃতিক, ঐতিহাসিক ও সভ্যতার মিলের বন্ধনের ভিত্তিতে বাংলাদেশ ও ভারতের সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত। এই সম্পর্কের ভিত্তিতে আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেছি। দুই দেশের জনগণের উন্নতি অর্জনের লক্ষ্যে আমরা  ভারত সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক বিভিন্ন প্রেক্ষিতে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে চায়।
 
প্রধানমন্ত্রী ভারতের নবনির্বাচিত রাষ্ট্রপতির সফলতা কামনা করে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ করেন।
টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে : স্পিকার
                                  
অনলাইন ডেস্ক :
স্পিকার ও সিপিএ চেয়ারপার্সন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার মতোই বাংলাদেশ টেকসই উন্নয়ন অভিষ্ট অর্জনেও এগিয়ে যাচ্ছে।
 
বৃহস্পতিবার ভিয়েতনাম পার্লামেন্টের হোয়া মায়ি হলে সে দেশের ন্যাশনাল এসেম্বলির প্রেসিডেন্ট গুয়েন থি কিম গ্যান এর সঙ্গে অনুষ্ঠিত দ্বিপক্ষীয় সভায় তিনি এ কথা বলেন। সংসদ সচিবালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়। 
 
এ সময় তারা দ্বিপাক্ষিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা করেন। তারা নারীর ক্ষমতায়ন, বাণিজ্যিক সম্পর্ক, জেন্ডার সমতা প্রভৃতি বিষয়ে নিজ নিজ দেশে গৃহীত কার্যক্রম এবং সংসদীয় রীতি-নীতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।
 
স্পিকার বলেন, ভিয়েতনাম বাংলাদেশের বন্ধু রাষ্ট্র। স্বাধীনতার পর স্বল্প সময়ে ভিয়েতনাম দ্রুত উন্নতি সাধন করেছে। তিনি বলেন, দু’দেশের জনপ্রতিনিধিগণ পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেন।
 
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, বর্তমান সরকারের গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশ আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। বিগত বছরগুলোতে বাংলাদেশ প্রায় ৭ শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে।
 
তিনি বলেন, সমাজের দুস্থ মানুষের জন্য সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচি তাদের জীবনযাত্রার মান উন্নত করছে। তিনি এসডিজি অর্জনে বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের অভিজ্ঞতা বিনিময়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।
 
গুয়েন থি কিম গ্যান বলেন, ভিয়েতনাম ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের প্রেক্ষাপট একই এবং দু’দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রেক্ষিতগুলোও প্রায় একই।  
 
তিনি বলেন, পারস্পরিক সহযোগিতা ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক দু’দেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। বাসস
শিগগিরই বিচারকদের শৃঙ্খলা বিধির গেজেট: আইনমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

সরকার অধস্তন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলা বিধির গেজেট প্রকাশের ‘খুব কাছাকাছি চলে এসছে’ বলে আশ্বস্ত করেছেন আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক। বৃহস্পতিবার বিকেলে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টে অধস্তন আদালতের বিচারকদের আচরণ ও শৃঙ্খলা বিধিমালা নিয়ে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে বৈঠকের পর মন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ দপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। 

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘এসব ব্যাপার নিয়ে একটু খুঁটিনাটি বোঝার প্রয়োজন ছিল। যেসব ব্যাপার নিয়ে দ্বিমত ছিল, সেগুলো অনেকাংশে দূর হয়েছে।’ আগামী সপ্তাহে এই বিধিমালা চূড়ান্ত হবে কি না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ইনশা আল্লাহ।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল খুব তাড়াতাড়ি পুনর্গঠন করা প্রয়োজন। সেটা ভেবেই আমরা পুনর্গঠন করার চেষ্টা করছি।’ 

চৌধুরী মঈনুদ্দীনকে যুক্তরাজ্য থেকে ফিরিয়ে আনতে নতুন করে উদ্যোগ নেওয়ার বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘এ বিষয়ে আমরা আগেই উদ্যোগ নিয়ে রেখেছি এবং এ উদ্যোগ থেকে সরকার কখনোই সরে আসেনি। তাঁকে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করার জন্য যেসব প্রক্রিয়া দরকার, আমরা তা চালিয়ে যাচ্ছি। এখন সিদ্ধান্ত ব্রিটিশ সরকারের ওপর নির্ভর করছে।’ 

তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, ‘তাকে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে ইন্টারপোলের সঙ্গে যেসব আলাপ-আলোচনা হচ্ছে এবং সরকার যেসব প্রক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছে, সেগুলোর যখন ফল হবে, তখন আপনারা তা জানতে পারবেন।

নির্বাচন কমিশনের সচিব পরিবর্তন
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সচিব মুহাম্মদ আবদুল্লাহকে শিল্পসচিব করে বদলি করা হয়েছে। একই সঙ্গে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার হেলালুদ্দীন আহমদকে । বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে আদেশ জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের বদলি নিয়ে নির্বাচন কমিশনার ও সচিবালয়ের এখতিয়ার নিয়ে সমালোচনার মধ্যে ইসি সচিববের বদলির এই আদেশ এলো।

সম্প্রতি এধরনের একটি বিষয় নিয়ে এক নির্বাচন কমিশনার ‘আন-অফিসিয়াল’ নোট দিয়ে ইসি সচিবের কাছে ব্যাখ্যা চান।পরে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা বলেন, মাঠ কর্মকর্তাদের বদলির বিষয়টি ইসি সচিবালয়ের, কমিশনের বিষয় নয়। এ নিয়ে ভুল বোঝাবুঝির অবকাশ নেই।

আলাদা আদেশে জননিরাপত্তা বিভাগে সংযুক্ত ওএসডি অতিরিক্ত সচিব মো. আবদুল হান্নানকে ভারপ্রাপ্ত সচিবের পদমর্যাদায় ভূমি আপীল বোর্ডের চেয়ারম্যান করা হয়েছে।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব-২ নমিতা হালদারকে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব নিয়োগ দিয়েছে সরকার।

সরকার মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায় : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ‌‘দেশে নতুন নতুন পুলিশ ফাঁড়ির ভবন নির্মিত হচ্ছে। নতুন থানা, আদালত ভবন নির্মিত হচ্ছে। সরকার মনে করে, এ সবই বিনিয়োগ করা হচ্ছে জনগণের নিরাপত্তায়। এর বিনিময়ে সরকার মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায়।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজশাহীর গোদাগাড়ী থানার প্রেমতলী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের নতুন ভবনের উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত সুধী সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের নিরাপত্তার প্রশ্নে সরকার কারো সঙ্গে আপস করবো না। জনগণ সঙ্গে আছে বলে সরকার বিএনপি-জামায়াতের জ্বালাও-পোড়াও থেকে শুরু করে উগ্রপন্থিদের সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করতে সক্ষম হয়েছে। তাই সরকারের কাছে সবার আগে জনগণের নিরাপত্তা।’

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘হলি আর্টিজানে হামলা ছিল একটা ধাক্কা। তারপর পুলিশ, র‌্যাবসহ অন্য সব বাহিনী তাদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করেছে। সাধারণ মানুষও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সহায়তা করেছে। এখন বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। সরকার প্রমাণ করেছে, এ দেশে কোনো জঙ্গিবাদের ঠাঁই হবে না।’

সমাবেশে স্থানীয় এমপি ওমর ফারুক চৌধুরী, রাজশাহী-৫ আসনের এমপি আবদুল ওয়াদুদ দারা, সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি আক্তার জাহান ও কবি কাজী রোজী এবং পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) এম খুরশীদ হোসেন উপস্থিত ছিলেন। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) মোয়াজ্জেম হোসেন ভূঁঞা।

‘আকাশ সংস্কৃতিতে যা ক্ষতিকর তা বর্জন করুন’
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ দেশের সংস্কৃতির সাথে যা সামঞ্জস্যপূর্ণ তা গ্রহণ এবং যা মন্দ ও দেশের সংস্কৃতির পরিপন্থী তা বর্জন করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি আজ বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত শিল্পকলা পদক-২০১৬ বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে এই আহ্বান জানান। তিনি বলেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির (আইসিটি) যুগে আকাশ সংস্কৃতি এখন বাস্তবতা... কিন্তু জনগণ ও সংস্কৃতি কর্মীদের ভালো জিনিস গ্রহণ এবং যা মন্দ ও দেশের জন্য ক্ষতিকর, তা বর্জন করতে হবে।
রাষ্ট্রপতি হামিদ সংশ্লিষ্ট সকলকে বিশেষ করে সংস্কৃতি কর্মীদের আকাশ সংস্কৃতির মাধ্যমে দেশের সুদীর্ঘ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও লোকগাঁথা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, সৃজনশীল বাংলাদেশ নির্মাণ ও দেশের লোকসাহিত্য ও ঐতিহ্য বিকাশে শিল্পী ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বগণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবেন। ‘সংস্কৃতি হচ্ছে জীবনের দর্পণ... শিল্প ও সংস্কৃতি হচ্ছে একটি দেশ ও জাতির প্রতিবিম্ব’ এ কথা উল্লেখ করে তিনি জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গঠনে শিল্প ও সংস্কৃতি চর্চার প্রয়োজনীয়তার কথা তুলে ধরেন।
রাষ্ট্রপতি বলেন, শিল্প ও সংস্কৃতি যুব সমাজের মধ্যে শৃংখলা, জাতীয়তাবোধ, দেশপ্রেমের চেতনা বিকাশসহ সাংস্কৃতির ঐতিহ্যের চেতনা জাগিয়ে তুলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধসহ জাতির বিভিন্ন ক্রান্তিলগ্নে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের অবদান শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে তিনি বলেন, একজন সফল সংস্কৃতিকর্মী ভ্রাম্যমাণ কূটনীতিকের মতো এবং তিনি তার দীপ্ত উপস্থিতি, প্রতিভা ও কর্ম দিয়ে দেশ ও জাতিকে বিশ্বসভায় আপন মহিমায় তুলে ধরতে পারেন। বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাস ও জঙ্গি কার্যক্রমের কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘জঙ্গি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম বিশ্ববাসীকে ভাবিয়ে তুলছে, কিন্তু কোন ধর্মই জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস সমর্থন করে না।’
তিনি সবাইকে শিশু, কিশোর ও যুবকদের মুক্তিযুদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উদ্বুদ্ধ করার আহ্বান জানান, যাতে তারা ধর্মান্ধতা, সাম্প্রদায়িকতা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিষবাষ্প থেকে দূরে থাকতে পারে।
রাষ্ট্রপতি সাতটি বিষয়ে সাতজন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বের মাঝে শিল্পকলা পদক-২০১৬ বিতরণ করেন। তারা হলেন- পবিত্র মোহন দে (যন্ত্রসঙ্গীত), মো. গোলাম মোস্তফা খান (নৃত্যকলা), গোলাম মুস্তাফা (ফটোগ্রাফি), কালিদাস কর্মকার (চারুকলা), সিরাজ উদ্দিন খান পাঠান (লোক সংস্কৃতি), সৈয়দ জামিল আহমেদ (নাট্যকলা) ও মিতা হক (কণ্ঠ সঙ্গীত)।
শিল্পকলা পদক বিজয়ীদের অভিনন্দন জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আপনারা সেলিব্রেটি, তারকা ও আইডল... সাধারণ মানুষ, বিশেষত তরুণ সমাজ আপনাদের অনুকরণ করতে পছন্দ করে। তাই তাদের প্রতি আপনাদেরও দায়বদ্ধতা রয়েছে।’ তিনি পদকপ্রাপ্তদের কর্মে দেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্য তুলে ধরার পাশাপাশি দুর্নীতি প্রতিরোধ, সুশাসন ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা, ধর্মীয় মূল্যবোধসহ বিরাজমান সামাজিক সমস্যাবলী তুলে ধরার আহ্বান জানান।
আবদুল হামিদ পুরস্কার বিতরণের পর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও উপভোগ করেন।
অনুষ্ঠানে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, সংস্কৃতি বিষয়ক সচিব মো. ইব্রাহীম হোসেন খান ও শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন।
সূত্র : বাসস

সবার সহযো‌গিতায় দুর্যোগ মোকা‌বিলা : ত্রাণমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, দেশের উত্তরাঞ্চলে বন্যায় সাধারণ মানুষের কষ্ট হয়ে‌ছে কিন্তু কেউ না খেয়ে থা‌কেনি। সরকার বন্যার্থ মানুষের পা‌শে আ‌ছে। সবার সহযো‌গিতায় আমরা প‌রি‌স্থি‌তি মোকা‌বিলা করে‌ছি।

বৃহস্পতিবার দুপু‌রে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে দে‌শের বন্যা প‌রি‌স্থি‌তি নি‌য়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

মায়া ব‌লেন, গত ৫ দিনে দেশের উত্তরাঞ্চলের বন্যাকবলিত জেলাগুলো সফর করে দেখেছি, বন্যাকবলিত এলাকার মানুষের অ‌নেক কষ্ট হয়েছে। কিন্তু কেউ না খেয়ে থাকেনি।

বর্তমান প‌রি‌স্থি‌তি তু‌লে ধ‌রে তি‌নি ব‌লেন, উত্তরাঞ্চলের বন্যার পানি নেমে যাচ্ছে। মানুষ আশ্রয়কেন্দ্র ছেড়ে নিজ নিজ বাড়ি ফিরছে। কিন্তু পানি নেমে যাওয়ার সময় দেশের মধ্যাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের কয়েকটি জেলা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা আছে। জেলাগুলো হলো- মুন্সিগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, রাজবাড়ি, ফরিদপুর, মাদারিপুর ও চাঁদপুর। এসব জেলার জেলা প্রশাসনকে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রাখা হয়েছে ব‌লেও জানান তি‌নি।

মন্ত্রী ব‌লেন, বন্যাকবলিত এলাকায় সবাই ত্রাণ পাওয়ার যোগ্য নয়। আমরা ক‌য়েক‌টি ক্যাটাগরি ঠিক ক‌রে ত্রাণ দিচ্ছি। তারম‌ধ্যে হতদরিদ্র, প্রতিবন্দ্বী ও নারী প্রধান পরিবার এবং ৬৫ বছর বয়সী পরিবারের কর্তাদের ত্রাণ দেয়া হচ্ছে।

তি‌নি বলেন, শতভাগ মানুষ ত্রাণ পাওয়ার যোগ্যও নয়। এ তৎপরতায় শতভাগ মানুষকে খুশি করা সম্ভবও নয়।

বিএনপির সমা‌লোচনা ক‌রে ত্রাণমন্ত্রী বলেন, বন্যায় অসহায় মানুষদের সাহায্য করা নিয়ে বিএন‌পি অপপ্রচার চালা‌চ্ছে।  ত্রাণ বিতরণ দূরে থাক, বিএনপি নেত্রী এখন বিদেশে পাড়ি জমিয়েছেন। আর তার মহাসচিব ঢাকায় বসে বড় বড় বু‌লি ছাড়‌ছেন।

তি‌নি ব‌লেন, বিএনপি জনগণের দুঃখ-কষ্ট নয় নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত আছে। ‌বিএন‌পি নেতা‌দের সামর্থ্য না থাকলে সরকা‌রের কাছ থেকে ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে বন্যাকব‌লিত মানুষের পা‌শে দাঁড়া‌নোর আহ্বান জানান মায়া।

মন্ত্রী বলেন, বন্যা কবলিত অনেক এলাকার মানুষ এলাকার বাঁধ সংস্কার, বীজ তলা ডুবে যাওয়া, খামারের মাছ ভেসে যাওয়া এবং পশু খাদ্য সংকটের কথা বলেছে। কিছু এলাকার বন্যাকবলিত এলাকার মানুষরা এনজিওর কাছ থেকে যে ঋণ নিয়েছ তার কিস্তি বন্ধ রাখার অনুরোধ করেছে। আমরা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোর সঙ্গে কথা বলে সমস্যাগুলো সমাধানের উদ্যোগ নিচ্ছি।

৫ দিন বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন শেষে ঢাকায় ফিরে ত্রানমন্ত্রী এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব শাহ কামাল এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ অধিদফতরের মহাপরিচালক রিয়াজ আহমেদ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

মাছে ভেজাল না দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

সামান্য মুনাফার লোভে মাছে ভেজাল না দিতে মৎস্য ব্যবসায়ী, প্রক্রিয়াজাতকারী ও রফতানিকারকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেছেন, ‘কিছু কিছু মানুষের একটু ভেজাল দেবার প্রবণতা রয়েছে। এই ভেজাল দিয়ে বেশি মুনাফা করতে গিয়ে একেবারে নিজের ব্যবসারও সর্বনাশ। দেশেরও সর্বনাশ। এই সর্বনাশের পথে যেন কেউ না যায়। বিশেষ করে আমাদের মৎস্য ব্যবসায়ীরা।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রফতানির ক্ষেত্রে সবসময় আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। যাতে কোনো অভিযোগ আমাদের বিরুদ্ধে না আসে। মাছ চাষ এবং প্রক্রিয়াজাতকরণের সঙ্গে যারা জড়িত তাদেরকে আমি অনুরোধ করবো, সামান্য একটু মুনাফার লোভে নিজের ব্যবসাটাও যেমন নষ্ট করবেন না, তেমনি দেশের রফতানি পণ্যটাও আপনারা নষ্ট করবেন না।’

জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৭ উদযাপন উপলক্ষে বুধবার সকালে রাজধানীর ফার্মগেটে খামারবাড়িতে কৃষিবিদ মিলনায়তনে মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বাড়ছে। আগে একজন রিকশাচালক যেখানে শুধু চাল কিনতে সক্ষম ছিল, সে এখন একটু মাছও  কিনতে পারে। একজন দিনমজুরের সক্ষমতাও বৃদ্ধি পেয়েছে। এজন্য চাহিদাও বাড়বে। মানুষের ক্রয়ক্ষমতা যত বাড়বে, আমাদের বাজারও ততটা বৃদ্ধি পেতে থাকবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পর দেখলাম চিংড়ি রফতানি বন্ধ হয়ে গেছে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন বাংলাদেশ থেকে চিংড়ি নেবে না। কেননা, চিংড়ি মাছের মধ্যে লোহা ঢুকিয়ে দিয়ে ওজন বাড়িয়ে সেটা রফতানি করা হয়। এটা যখনই ধরা পড়ে সঙ্গে সঙ্গেই চিংড়ি রফতানি বন্ধ হয়ে যায়। আমরা ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে কথা বলে মৎস্য খাতের উন্নয়নের জন্য সেই সময় ৪০ কোটি টাকা বরাদ্দ করি এবং একটি কমিটি করে দেই। সেই টাকা দিয়ে প্রত্যেকটি হ্যাচারি উন্নত করা হয়। ধীরে ধীরে মানসম্পন্ন রফতানির মধ্য দিয়ে আবার মৎস্য রফতানি সচল হয়।’

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী সায়েদুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এবং মন্ত্রণালয়ের সচিব মাহমুদুল হাসান খান বক্তৃতা করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি প্রথমবার ক্ষমতায় এসেই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে অনুরোধ করেছিলাম যেমন আমাদের কৈ মাছ, মাগুর মাছসহ দেশী মাছের ওপর গবেষণার জন্য। আগে দেখতাম তেলাপিয়া ও কার্প জাতীয় মাছ নিয়েই কেবল গবেষণা চলত। বাজারে কোন মাছের চাহিদা বেশি সেটা নিয়েই আমাদের গবেষণা করা, উৎপাদন বৃদ্ধি করা এবং প্রক্রিয়াজাত করে সেটা বিদেশে রফতানি করা প্রয়োজন।’

১৮ জুলাই থেকে ২৪ জুলাই পর্যন্ত এবারের মৎস্য সপ্তাহ উদযাপিত হচ্ছে। এবার প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘মাছ চাষে গড়বো দেশ, বদলে দেব বাংলাদেশ।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘স্বাধীনতার পর জাতির পিতা ১৯৭৩ সালে গণভবনের লেকে আনুষ্ঠানিকভাবে মাছের পোনা ছেড়ে মৎস্য সপ্তাহ উদযাপনের শুভ সূচনা করেন। তিনি পাট, চা, চামড়ার সঙ্গে মাছকেও বাংলাদেশের রফতানিপণ্য হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন। মৎস্যসম্পদ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের দ্বিতীয় প্রধান খাত হবে বলে জাতির পিতা আশাবাদ ব্যক্ত করেছিলেন।’

তিনি বলেন, ‘আজ দেশের ১ কোটি ৮২ লাখ মানুষের জীবন-জীবিকা মৎস্য সম্পদের সঙ্গে সম্পর্কিত। জিডিপিতে মৎস্যসম্পদের অবদান প্রায় ৪ শতাংশ। প্রাণিজ আমিষের ৬০ ভাগ যোগান দেয় মৎস্য খাত। জাতির পিতার সেই আশাবাদ এখন বাস্তবে পরিণত হতে যাচ্ছে।’

প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে ১৩ জন মৎস্য চাষি এবং প্রতিষ্ঠানকে মৎস্য খাতে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেব স্বর্ণ ও রৌপ্য পদক প্রদান করেন। এদের মধ্যে ৪ জন স্বর্ণপদক এবং ৯ জন রৌপ্যপদক লাভ করেন। তিনি পদকপ্রাপ্তদেরকে যথাক্রমে নগদ ৫০ হাজার টাকা ও ৩০ হাজার টাকার চেক এবং পদক ও সনদপত্র প্রদান করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বর্ষা মৌসুমের বিশাল প্লাবনভূমি যা স্বাদু পানির মাছের প্রধান প্রজনন ও বিচরণক্ষেত্র। এ ছাড়া রয়েছে বিশাল সমুদ্র। এই সমুদ্রে আরও যোগ হয়েছে মিয়ানমার ও ভারতের কাছ থেকে আইনি লড়াইয়ে অর্জিত গভীর সমুদ্রের ১ লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটার এলাকা। স্বাদু পানি এবং বিশাল এই সমুদ্র এলাকা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে তথা মৎস্য আহরণ, বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন ও জীবিকা নির্বাহের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের কৃষিজ আয়ের ২৪ দশমিক ৪১ ভাগ আসে মৎস্য খাত থেকে এবং জিডিপিতে এ খাতের অবদান প্রায় ৩ দশমিক ৬১ ভাগ। তা ছাড়া প্রাণিজ আমিষের ৬০ ভাগ যোগান আসে মাছ থেকে। বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে এ খাতের বিশেষ অবদান উল্লেখযোগ্য।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরাই দেশে প্রথমবারের মত ‘জাতীয় মৎস্য নীতি-১৯৯৮’ প্রণয়ন করি। সে সময় পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ, জলমহালে সমাজভিত্তিক মাছ চাষ ব্যবস্থাপনা, মাছের আবাসস্থল উন্নয়ন, প্লাবনভূমিতে মৎস্য চাষ ও মাছের অভয়াশ্রম স্থাপন এবং অবকাঠামো উন্নয়নে ১০৭ কোটি টাকার ২৬টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করি। চট্টগ্রামে পাহাড়ি জলাশয়ে ও সারাদেশে মৎস্য চাষ সম্প্রসারণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়। আমরা ৭৯৯টি জলমহাল মৎস্য অধিদফতরের কাছে হস্তান্তর করি। মৎস্য চাষী, মৎস্যজীবী ও উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ দেই। ভূমিহীন, বেকার ও প্রান্তিক মৎস্যজীবী ও মৎস্য চাষীদেরকে সহজ শর্তে ঋণ দেই।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মৎস্য উৎপাদন ও মৎস্য চাষ সম্প্রসারণ কার্যক্রম বাস্তবায়নে কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৯৭ সালে জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা মৎস্য অধিদফতরকে সম্মানজনক ‘অ্যাডওয়ার্ড সওমা’ পুরস্কারে ভূষিত করে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জলমহালে সমাজভিত্তিক মাছ চাষ ব্যবস্থাপনা, মৎস্য আবাসস্থল উন্নয়ন, প্লাবনভূমিতে মৎস্য চাষ ও মাছের অভয়াশ্রম স্থাপনসহ বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণ এবং অভ্যন্তরীণ বদ্ধ জলাশয়ে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে জনসচেতনতা বৃদ্ধি, গুণগত মানসম্পন্ন মাছের পোনা উৎপাদনের জন্যও যুগোপযোগী কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘নতুন জলমহাল নীতিমালা, মাছ চাষীদের মাঝে মানসম্পন্ন রেণু সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য মৎস্য হ্যাচারি আইন ও মৎস্য হ্যাচারি বিধিমালা; গুণগতমানের মৎস্য খাদ্য সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য মৎস্য খাদ্য ও পশুখাদ্য আইন এবং মৎস্য খাদ্য বিধিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। দেশি-বিদেশি ভোক্তাদের মানসম্পন্ন চিংড়ি সরবরাহ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে জাতীয় চিংড়ি নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত জেলেদের সহায়তা কর্মসূচিতে খাদ্যশস্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ১ লক্ষ ৯৬ হাজার ৫৬৯ মেট্রিক টন যা ২০০১ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত ছিল মাত্র ৬ হাজার ৯০৬ মেট্রিক টন। এর ফলে ইলিশ উৎপাদন প্রায় ১ লক্ষ মেট্রিক টন বৃদ্ধি পেয়ে ৩ লক্ষ ৮৭ হাজার মেট্রিক টনে দাঁড়িয়েছে।

এ ধরনের বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ ও কার্যক্রম বাস্তবায়নের মাধ্যমে আমরা মাছের উৎপাদন ও আহরণ বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৩৮ লক্ষ ৭৮ হাজার মেট্রিক টন মাছ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে যা ইতিপূর্বে ছিল ৯ লক্ষ ৭৪ হাজার মেট্রিক টন। ফলে অভ্যন্তরীণ জলাশয়ে মৎস্য আহরণে বাংলাদেশ বিশ্বে ৪র্থ স্থান অধিকার করার গৌরব অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।’ তথ্যসূত্র : বাসস

হুমায়ূন স্মৃতি জাদুঘর হচ্ছে নুহাশ পল্লীতে
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকীতে বইপড়া ও সাহিত্য আলোচনার পাশাপাশি দোয়া মাহফিলের মতো নানা আয়োজনে হিমু ও মিছির আলীসহ জনপ্রিয় অনেক চরিত্রের স্রষ্টা প্রয়াত হুমায়ূন আহমেদকে স্মরণ করেছে তার ভক্ত ও পরিবারের সদস্যরা।

২০১২ সালের ১৯ জুলাই না ফেরার দেশে চলে যান নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলায় জন্ম নেয়া পাঠকপ্রিয় সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ, মৃত্যুর পর যিনি সমাহিত হন গাজীপুরে তারই প্রতিষ্ঠিত নূহাশ পল্লীতে।

সাহিত্যের নতুন পাঠক তৈরির জন্য খ্যাত এই লেখকের পঞ্চম প্রয়াণ দিবস ঘিরে কেন্দুয়া ও নূহাশ পল্লী- দুই জায়গাতেই চলছে বিভিন্ন আয়োজন।

বুধবার সকালে নূহাশ পল্লীতে চিরনিদ্রায় শায়িত এ লেখকের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পর স্মৃতি রক্ষার্থে সেখানে ‘হুমায়ূন আহমেদ স্মৃতি জাদুঘর’ প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে বলে জানান তার স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন।

সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আশা করছি, আগামী ১৩ নভেম্বর হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিনে ওই জাদুঘরের একটা অংশ উদ্বোধন করা হবে।’

কোলন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার সময়ে বাংলাদেশে একটি উন্নত মানের ক্যান্সার হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার স্বপ্নের কথা জানিয়েছিলেন হুমায়ূন আহমেদ।

সেই হাসপাতাল প্রতিষ্ঠান দেশের নীতিনির্ধারকদের উদ্যোগ ও সহযোগিতার আহ্বান জানান শাওন।

তিনি বলেন, ‘আমি আমার পক্ষ থেকে জীবন দিয়ে যতটুকু করবার সেটা আমি করব। কিন্তু আমি একা, আমার আহ্বানে একটি ক্যান্সার হসপিটাল করা সম্ভব নয়। কিন্তু হুমায়ূন আহমেদের একটা  আহ্বানে সেটা সম্ভব ছিল।

‘এক হুমায়ূন আহমেদের ডাকে বাংলাদেশে তার সমস্ত ভক্ত-পাঠক, তার দর্শকরা যেভাবে একত্রিত হত, আমার ডাকে সেটা হবে না। আমিতো আছিই, আমি সব সময় থাকব। ক্যান্সার হসপিটালের এ উদ্যোগটা গোষ্ঠীবদ্ধভাবে নিতে হবে।’

এসময় অন্যদের মধ্যে হুমায়ূন আহমেদ-শাওন পুত্র নিষাদ ও নিনিত, শাওনের মা তহুরা আলী, বাবা প্রকৌশলী মোহাম্মদ আলী, হুমায়ুন আহমেদের বোন সুফিয়া হায়দার ও রোকসানা আহমেদসহ অসংখ্য ভক্তরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে বেলা পৌনে ১২টার দিকে পরিবারের পক্ষ থেকে হুমায়ুন আহমেদের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক ঘুরে দেখলেন জয়
                                  

অনলাইন ডেস্ক, ফাইল ছবি :

স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গে নিয়ে গাজীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক ঘুরে দেখেছেন প্রধানমন্ত্রীর ছেলে ও তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।  বুধবার বেলা সাড়ে ১২টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত পরিবারের সদস্যদের নিয়ে পার্কে ঘুরে বেড়ান তিনি। 

সাধারণ দর্শনার্থীদের মতোই পার্কের গাড়িতে চড়ে ম্যাকাউ ও প্যারট এভিয়ারিসহ বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করে জয়। এ সময় গাজীপুরের জেলা প্রশাসক দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির, সাফারি পার্ক প্রকল্প পরিচালক সামসুল আজমসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জয়ের সঙ্গে ছিলেন।

সাফারি পার্কের তত্ত্বাবধায়ক ও সহকারী বন সংরক্ষক শাহাবুদ্দিন বলেন, ওনারা ঘুরে বেড়ানোর পরে স্থানীয় গ্রিন ভিউ রিসোর্টে দুপুরের খাবার খান এবং বিশ্রাম নেন। স্ত্রী-সন্তনসহ পরিবারের আট সদস্যকে নিয়ে সাফারি পার্ক পরিদর্শনে এসেছিলেন সজিব ওয়াজেদ। এটা ছিল একেবারেই পারিবারিক সফর।

জেলা প্রশাসক হুমায়ুন কবির বলেন, সাফারি পার্ক ঘুরে দেখে সজিব ওয়াজেদ জয় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। জয় বলেছেন, পার্কটিকে আরও ডেভেলপ করা দরকার, এ জন্য যা যা করা দরকার, সেক্ষেত্রে সরকারকে তিনি বলবেন, সহযোগিতা করবেন।

সূত্র : বাসস

‘ইসির রোডম্যাপে কোন খানাখন্দ নেই’
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

নির্বাচন কমিশনার কাজী কবিতা খানম বলেছেন, সকল প্রকান খানাখন্দ পরিহার করে রোডম্যাপ তৈরি করা হয়েছে। খানাখন্দ যেন সৃষ্টি না হয় সেটা অবশ্যই দেখভাল করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি) । মঙ্গলবার খুলনায় স্মার্টকার্ড বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার বেগম কবিতা খানম এ কথা বলেন ।খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। 

নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম বলেন, শপথ গ্রহণের মাধ্যমে আমরা এ মহান দায়িত্বে আছি এবং আমাদের ওপর যে দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছে আপনাদের সবার সহযোগিতায় সে দায়িত্ব আমরা সম্পন্ন করতে চাই।

কবিতা খানম আরও বলেন, সরকারের বিষয়টি আমাদের কার্যক্রমে, আমাদের এখতিয়ারে নেই। তবে আমরা লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করার জন্য সব ধরনের সুযোগ দেব।

প্রত্যেকটা দলের অংশগ্রহণের ভিত্তিতে যেহেতু আমরা নির্বাচন করতে যাচ্ছি অবশ্যই লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড আমরা তৈরি করব। সে আস্থা আমাদের আছে। কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন কিন্তু ছোটখাট নির্বাচন নয়। এ নির্বাচন নিয়ে কিন্তু কোনো প্রশ্ন উঠেনি। এখানে কিন্তু সেরকম ফিল্ড তৈরি করা ছিল। নির্বাচনের আগে সেখানে বৈঠক করেছি। সব দলের অংশগ্রহণের মাধ্যমেই ওই বৈঠক হয়েছে। আমি কোনো অভিযোগ পাইনি যে প্রচারের ক্ষেত্রে কেউ বাধার সম্মুখীন হয়েছে।

কবিতা খানম বলেন, যে কয়েকটা নির্বাচন আমরা এ পর্যন্ত করেছি, দুই একটায় তো ঝামেলা হবেই, এটা স্বাভাবিক। কিন্তু আমরা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছি। বিভিন্ন অভিযোগ তদন্ত করেছি। তদন্তের পর আইনানুগ ব্যবস্থা নেব।

খুলনা জেলা প্রশাসক আমিন উল আহসানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন, খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য মিজানুর রহমান, খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুজ্জামান মনি, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো. আব্দুস সামাদ,  স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিষয়ক প্রকল্প পরিচালক  ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. সাইদুল ইসলাম প্রমুখ।

পরে খুলনায় প্রথম এবং দ্বিতীয় ব্যক্তি হিসেবে স্মার্ট কার্ড প্রদান করা হয় সংসদ  সদস্য মিজানুর রহমান, খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুজ্জামান মনিকে।

মালয়েশিয়ায় অবৈধ বাংলাদেশিদের বৈধ হবার সময় বাড়লো
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

মালয়েশিয়ায় বসবাসরত অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসীরা চলতি বছরের  ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে রি-হেয়ারিং প্রক্রিয়ায় বৈধ হবার সুযোগ পাবেন।মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহাম্মদ শহীদুল ইসলাম এ তথ্য জানান। মঙ্গলবার মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনে দেশটির ইমিগ্রেশন অধিদফতরের মহাপরিচালক দাতু শ্রী মুস্তাফার আলির সঙ্গে বৈঠকের পর তিনি এ তথ্য জানান। 

শহীদুল ইসলাম বলেন, মালয়েশীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে অবৈধ বাংলাদেশিদের ভাগ্য নিয়ে সমঝোতার চেষ্টা চলছে। আশা করছি ভালো কিছু রেজাল্ট পাওয়া যাবে। তবে রি-হায়ারিংয়ের জন্য এখনও ৫ মাস সময় রয়েছে। এই সময়ের মধ্যে তাদের সঙ্গে আরো বৈঠক হবে।

হাই কমিশনার বলেন, অবৈধ ব্যক্তিদের ধরপাকড় যে কোনো দেশের অভ্যন্তরীণ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি রক্ষার নিয়মিত, স্বাভাবিক ও চলমান প্রক্রিয়া। তবে মালিকপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে যে সব শ্রমিক রি-হায়ারিংয়ের আওতায় অংশ নিতে ইমিগ্রেশনে যাবেন তাদের কোনো ধরনের হয়রানি করা হবে না বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

এর আগে, সোমবার কুয়ালালামপুরে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে বাংলাদেশ দূতাবাসের ডেপুটি হাই কমিশনার ওয়াহিদা আহমেদ ও শ্রম শাখার প্রথম সচিব মো. হেদায়েতুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

সভায় অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক মোস্তাফার আলী বলেন, চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত মালয়েশিয়ায় বসবাসরত অবৈধ বাংলাদেশিরা রি-হিয়ারিং প্রক্রিয়ার আওতায় বৈধ হওয়ার সুযোগ পাবেন। ইমিগ্রেশন মহাপরিচালক এই সুযোগ গ্রহণের জন্য সকলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

গত ৩০ জুন শেষ হওয়া ই-কার্ড প্রক্রিয়ায় এক লাখ অবৈধ বাংলাদেশি নিবন্ধিত হয়েছেন এবং ২ লাখ ৯৩ হাজার অবৈধ বাংলাদেশি রি-হিয়ারিংয়ের আওতায় নিবন্ধিত হয়েছেন।অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক এই অভূতপূর্ব সাড়ার উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন এবং উভয় দেশের মধ্যে সহযোগিতার এই প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে বলেও জানান।

এদিকে বাংলাদেশ হতে ট্যুরিস্ট, প্রফেশনাল বা ব্যবসায়িক ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়ায় কাজ করার কোনো সুযোগ নেই উল্লেখ করে দেশটির অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক অনুরোধ করেন যাতে সঠিক শ্রেণির ভিসা নিয়ে বাংলাদেশিরা মালয়েশিয়ায় আসেন যা এয়ারপোর্টে হয়রানির সম্ভাবনাকে হ্রাস করবে।সাম্প্রতিককালের হিসেব অনুযায়ি সে দেশের বিভিন্ন ডিটেনশন ক্যাম্পে ৩-৬ মাস মেয়াদে ১৫ জন, ৬-১২ মাস মেয়াদে ৪ জন এবং ১ বছর মেয়াদে ৭ জন সম্ভাব্য বাংলাদেশি আটক রয়েছে।

এদিকে বিপুল পরিমাণ প্রবাসীদের সেবা প্রদানের গত এক সপ্তাহে ৩১ হাজার ৯৮৪ জনকে কন্স্যুলার সেবা প্রদান করেছে। এ ছাড়াও প্রতি সপ্তাহান্তে নিয়মিতভাবে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে কন্স্যুলার ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হচ্ছে। দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টান্তে দূতাবাসে আগত সেবাগ্রহণকারিরা যাতে ওয়ান স্টপ সার্ভিসের আওতায় ব্যাংকিং সার্ভিসসহ অন্যান্য সেবা গ্রহণ করতে পারেন তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন দূতাবাসের ডিফেন্স উইং প্রধান এয়ার কমডোর হুমায়ূন কবির, মিনিস্টার পলিটিক্যাল রাইস হাসান সারোয়ার, পাসপোর্ট ও ভিসা শাখার ফার্স্ট সেক্রেটারি মো. মশিউর রহমান তালুকদার, দ্বিতীয় সচিব তাহমিনা ইয়াছমিন, শ্রম শাখার দ্বিতীয় সচিব মো. ফরিদ আহমদ।

গত ৩০ জুন থেকে এ পর্যন্ত পুলিশের সাঁড়াশি অভিযানে প্রায় দেড় হাজারেরও অধিক বাংলাদেশিকে গ্রেফতার করা হয়। এই পটভূমিতে বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার মধ্যে একাধিক বৈঠক হয়। এসব বৈঠকে অবৈধ বাংলাদেশিদের গ্রেফতার না করার সিদ্ধান্ত হয়।

শিশুদের জন্য গণমাধ্যমের এক মিনিট বরাদ্দ
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

প্রতিদিনের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে রাত সাড়ে ১০টার মধ্যে শিশুদের জন্য ইউনিসেফের সহযোগিতায় এক মিনিট সময় রাখবে আরও পাঁচটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল। এই সময় শিশুবিষয়ক ক্ষুদ্র অনুষ্ঠান চ্যানেলগুলো বিনামূল্যে প্রচার করবে।এটি তাদের সামাজিক দায়বদ্ধতা হিসেবে গণ্য হবে।

মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর উপস্থিতিতে জাতিসংঘের শিশু অধিকার সংস্থাটির সঙ্গে এ-সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারক সই করে ওই পাঁচ টেলিভিশন। ইউনিসেফের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে সই করেন বাংলাদেশে সংস্থার অফিস ইনচার্জ সারা বোরদাস এডি। 

এই পাঁচ টিভি চ্যানেল হলো- একাত্তর টিভি, একুশে টিভি, বিজয় টিভি, বাংলা টিভি ও দুরন্ত টেলিভিশন। এর আগে বিটিভিসহ ছয়টি টেলিভিশন স্টেশন ইউনিসেফের সঙ্গে একই ধরনের সমঝোতা স্মারক সই করে। সেগুলো হচ্ছে এটিএন বাংলা, দেশ টিভি, বৈশাখী টিভি, সময় টিভি, চ্যানেল টোয়েন্টিফোর ও গাজী টিভি।

শিক্ষায় অবদানে আন্তর্জাতিক পুরস্কার পাচ্ছেন শিক্ষামন্ত্রী
                                  

অনল‍াইন ডেস্ক :

ওয়ার্ল্ড এডুকেশন কংগ্রেস গ্লোবাল অ্যাওয়ার্ড-২০১৭-এর জন্য মনোনীত হয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। শিক্ষাক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রাখায় তাকে এ অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হচ্ছে।আগামী ২৩-২৪ নভেম্বর ভারতের মুম্বাইয়ে অনুষ্ঠেয় ষষ্ঠ ওয়ার্ল্ড এডুকেশন কংগ্রেস সম্মেলনে তাকে এ পুরস্কার দেওয়া হবে।

মঙ্গলবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়ে বলা হয়, শিক্ষাক্ষেত্রে নেতৃত্ব ও অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ব্যক্তিগত ক্যাটাগরিতে তিনি এ পুরস্কার পাচ্ছেন।অ্যাওয়ার্ড হিসেবে একটি ট্রফি ও সাইটেশন প্রদান করা হবে।

ওয়ার্ল্ড এডুকেশন কংগ্রেসের অ্যাওয়ার্ডস ও একাডেমিক কমিটির চেয়ারম্যান এডওয়ার্ড স্মিথ বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রীকে পাঠানো পত্রে বলেন, ‘শিক্ষাক্ষেত্রে আপনার নেতৃত্ব ও অবদান সুপরিচিত। এ ক্ষেত্রে আপনি গুরুত্বপূর্ণ ও আইকনিক ব্যক্তি।’ বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রীকে তিনি চিন্তাবিদ, কর্মী এবং পরিবর্তনে বিশ্বাসী একজন রোল মডেল ব্যক্তি হিসেবে উল্লেখ করেন।

শিল্পকলা পদক পাচ্ছেন ৭ গুণীজন
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

শিল্পকলা একাডেমি প্রবর্তিত ২০১৬ সালের শিল্পকলা পদক ঘোষণা করা হয়েছে। এ বছর শিল্পকলা পদক পাচ্ছেন দেশের ৭ গুণীজন।সাত ক্যাটাগরিতে  পদক পেয়েছেন পবিত্র মোহন দে (যন্ত্রসংগীত), মো. গোলাম মোস্তফা খান (নৃত্যকলা), গোলাম মুস্তফা (ফটোগ্রাফি), কালিদাস কর্মকার (চারুকলা), সিরাজউদ্দিন পাঠান (লোকসংস্কৃতি), সৈয়দ জামিল আহমেদ (নাট্যকলা) ও মিতা হক (সংগীত)।

২০ জুলাই বৃহস্পতিবার বিকাল তিনটায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ পদকপ্রাপ্তদের হাতে এ সম্মাননা তুলে দিবেন। খবর বাসসের

মঙ্গলবার দুপুরে শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকি একাডেমির স্টুডিও থিয়েটার হলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

সংবাদ সম্মেলনে শিল্পকলা একাডেমির সচিব জাহাঙ্গীর হোসেন চৌধুরী ও একাডেমির চারুকলা বিভাগের পরিচালক শিল্পী মনিরুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

মহাপরিচালক বলেন, নির্বাচিত গুণীজনদের প্রত্যেকেকে একটি স্বর্ণপদক , ১ লাখ টাকা ও একটি সনদপত্র প্রদান করা হবে।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে শিল্পকলা একাডেমি ২০১৩ সাল থেকে শিল্পকলা পদক পদক প্রদান করে আসছে।

শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক,একাডেমির সচিব,একাডেমির ৬ জন পরিচালক,৭ জন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এবং সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের ১ জন প্রতিনিধি সমন্বয়ে ১৬ সদস্যের কমিটি প্রতিবছর পদক প্রদানের ক্ষেত্র এবং পদকের জন্য গুণীজন নির্বাচন করে থাকেন।

পদক প্রদানের জন্য তালিকাভুক্ত ক্ষেত্র ১২ টি। ক্ষেত্রসমূহ হচ্ছে- কন্ঠসঙ্গীত, যন্ত্রসঙ্গীত, নৃত্যকলা, চারুকলা, আবৃত্তি, ফটোগ্রাফি, যাত্রাশিল্প, চলচ্চিত্র, সৃজনশীল সংগঠক, সংস্কৃতি গবেষক ও লোকসংস্কৃতি। তবে প্রতিবছর এর মধ্য থেকে সাতটি বিষয়ে এ পদক প্রদান করা হয়ে থাকে। প্রতিবছর কমিটি বিষয়সমূহ নির্বাচন করে থাকে।

বিশিষ্ট ক্রীড়াবিদ গোলাম মোস্তফাকে দেখতে হাসপাতালে প্রধানমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক :

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর এ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিশিষ্ট ক্রীড়াবিদ গোলাম মোস্তফাকে দেখতে যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গোলাম মোস্তফা লং জাম্পে অল ইন্ডিয়া চ্যাম্পিয়ন ছিলেন। তিনি শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল এর সহধর্মিনী সুলতানা কামাল এর বড় ভাই। তিনি শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত রোগে ভুগছেন।

প্রধানমন্ত্রী রোগীর চিকিৎসার খোঁজখবর নেন এবং আত্মীয়স্বজনদের সঙ্গে বেশ কিছু সময় কাটান।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন সামরিক সচিব মেজর জেনারেল জয়নাল আবেদীন, ব্যক্তিগত চিকিৎসক ড. সুরাইয়া বেগম, কার্যালয়ের পরিচালক ড. জুলফিকার লেনিন।


   Page 1 of 117
     জাতীয়
রাম নাথ কোভিন্দকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন
.............................................................................................
টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে : স্পিকার
.............................................................................................
শিগগিরই বিচারকদের শৃঙ্খলা বিধির গেজেট: আইনমন্ত্রী
.............................................................................................
নির্বাচন কমিশনের সচিব পরিবর্তন
.............................................................................................
সরকার মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায় : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
‘আকাশ সংস্কৃতিতে যা ক্ষতিকর তা বর্জন করুন’
.............................................................................................
সবার সহযো‌গিতায় দুর্যোগ মোকা‌বিলা : ত্রাণমন্ত্রী
.............................................................................................
মাছে ভেজাল না দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
হুমায়ূন স্মৃতি জাদুঘর হচ্ছে নুহাশ পল্লীতে
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক ঘুরে দেখলেন জয়
.............................................................................................
‘ইসির রোডম্যাপে কোন খানাখন্দ নেই’
.............................................................................................
মালয়েশিয়ায় অবৈধ বাংলাদেশিদের বৈধ হবার সময় বাড়লো
.............................................................................................
শিশুদের জন্য গণমাধ্যমের এক মিনিট বরাদ্দ
.............................................................................................
শিক্ষায় অবদানে আন্তর্জাতিক পুরস্কার পাচ্ছেন শিক্ষামন্ত্রী
.............................................................................................
শিল্পকলা পদক পাচ্ছেন ৭ গুণীজন
.............................................................................................
বিশিষ্ট ক্রীড়াবিদ গোলাম মোস্তফাকে দেখতে হাসপাতালে প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বুধবার ভিয়েতনাম যাচ্ছেন স্পিকার
.............................................................................................
মন্ত্রিসভায় রদবদল হতে পারে : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
সিরাজগঞ্জে বাধের ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শনে পানি সম্পদমন্ত্রী
.............................................................................................
অজুহাত দেখিয়ে বিদেশে গিয়ে বন্যা নিয়ে রাজনীতি করছে একটি দল
.............................................................................................
পরিবার পরিকল্পনায় নারী-পুরুষের যৌথ উদ্যোগ জরুরি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
১৭৫০ থেকে ১৮০০ টাকা মণ দরে পাট কিনবে সরকার
.............................................................................................
এবার ৫০ লাখ নতুন ভোটার অন্তর্ভুক্ত হবে: ইসি
.............................................................................................
সুদানের উদ্দেশে ১৪০ পুলিশ শান্তিরক্ষীর ঢাকা ত্যাগ
.............................................................................................
শিক্ষার্থীদের কৃষি সম্পর্কে ধারণা দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশীদের ধরপাকড় বন্ধ হয়েছ
.............................................................................................
‘ড্রেন বিকলাঙ্গ বাচ্চা, ক্যান্সারে আক্রান্ত’
.............................................................................................
বিচারকদের শৃঙ্খলা বিধিমালার গেজেট চূড়ান্ত বৃহস্পতিবার
.............................................................................................
‘মার্কেটে অনাকাঙ্ক্ষিত স্পর্শের শিকার ৫০% নারী’
.............................................................................................
বন্যার্ত একটি মানুষও না খেয়ে মরবে না: ত্রাণমন্ত্রী
.............................................................................................
বন্যার্ত একটি মানুষও না খেয়ে মরবে না: ত্রাণমন্ত্রী
.............................................................................................
‘সরকার অনলাইন গণমাধ্যমকে সুরক্ষা দেবে’
.............................................................................................
রমেল চাকমা ‘হত্যা’র তদন্ত শুরু করেছে মানবাধিকার কমিশন
.............................................................................................
রাষ্ট্রপতি ভবনে হাসিনা-মমতা বৈঠক
.............................................................................................
আইপিইউ সম্মেলনে মুখোমুখি উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশ
.............................................................................................
প্রতিবন্ধিতার কারণে কোন শিশুকে শিক্ষা কার্যক্রমের বাইরে রাখা যাবে না : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
পাকিস্তানের গোয়েন্দারা উৎসাহ দেয় বাংলাদেশের জঙ্গিদের : কৃষিমন্ত্রী
.............................................................................................
বাংলাদেশের শারমিন সাহসী নারীর পুরস্কার পেলেন
.............................................................................................
জঙ্গিরা ইসলামকে বিশ্বব্যাপী হেয় করছে : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
সন্ত্রাস প্রতিরোধে একসঙ্গে কাজ করবে বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্য
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রী ফরিদপুরে পৌঁছেছেন, বিকালে ভাষণ দেবেন
.............................................................................................
আইপিইউ ১৩৬ তম সম্মেলনে আসছে না পাকিস্তান
.............................................................................................
জঙ্গিবাদীদের বিরুদ্ধে সবাইকে সচেতন হতে হবে : খাদ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
আমাদের মূল লক্ষ্য জনগণের জীবনমানের উন্নয়ন : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
ঢাকা দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর
.............................................................................................
হজ যাত্রীদের নিবন্ধন শুরু হচ্ছে আজ
.............................................................................................
মাদক প্রতিরোধে শরীর ও সংস্কৃতি চর্চা করতে হবে : সাঈদ খোকন
.............................................................................................
বিমানের লোকসানের বলির পাঠা হচ্ছে ম্যানচেষ্টার অফিস
.............................................................................................
পুলিশের দুই ডিআইজিকে বদলি ও ২ জনকে পদোন্নতি
.............................................................................................
দুই পুলিশ সদস্যের মৃত্যুতে আইজিপির শোক প্রকাশ করেছেন
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
[ সম্পাদক মন্ডলী ]
2, RK Mission Road (5th Floor) Motijheel, Dhaka - 1203.
মোবাইল: ০১৭১৩৫৯২৬৯৬, ০১৯১৮১৯৮৮২৫ ই-মেইল : deshkalbd@gmail.com
   All Right Reserved By www.deshkalbd.com Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]