মঙ্গলবার , ০৭ নভেম্বর ২০১৭

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি:
গোপালগঞ্জে স্ত্রী হত্যার দায়ে পুলিশ সদস্য স্বামী মশিউর রহমানকে (৩৬) ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। সেই সঙ্গে বিচারক ওই আসামিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন। সোমবার বিকেলে গোপালগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক জেলা ও দায়রা জজ মো: দলিল উদ্দিন এ রায় প্রদান করেন।
সাজাপ্রাপ্ত মশিউর রহমান গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার চর মানিকদহ গ্রামের মফিজুর রহমান ওরফে পাপার ছেলে। মশিউর পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকরি করতেন। স্ত্রী হত্যাকান্ডে অভিযুক্ত হবার পর পুলিশের চাকরি থেকে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে পুলিশ বিভাগ। এ মামলার অপর ৫ আসামি পুলিশ সদস্যের বাবা মফিজুর রহমান পাপা, মা সেলিনা বেগম ওরফে শেলী, বোন মাফুজা বেগম, ভগ্নিপতি ইব্রাহিম মোল্লা ও ভাবী শাম্মী ইয়াসমিন ওরফে সোমাকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত।
মামলার বিবরনে জানা গেছে, বিগত ২০০৪ সালের ২২ নভেম্বর মশিউর রহমান গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার ছাগলছিড়া গ্রামের নেছার উদ্দিন মোল্লার মেয়ে সাদিয়া জাহান ওরফে তুলি বেগমকে বিয়ে করে। বিয়ের পর থেকে স্বামীর বাড়ির লোকজন তুলিকে যৌতুকের টাকা এনে দিতে চাপ দেয়। তুলি টাকা এনে দিতে অস্বীকার করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে স্বামী ও তার বাড়ির লোকজন তাকে নির্মম ভাবে হত্যা করে।
এ ঘটনার পর দিন ২৮ নভেম্বর তুলির বাবা নেছার উদ্দিন মোল্লা বাদী হয়ে মশিউর রহমানসহ ৬ জনকে আসামি করে গোপালগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। অ্যাডভোকেট মেহেদী হাসান আসামি পক্ষে ও রাষ্ট্রপক্ষে পিপি মো. আব্দুল হালিম মামলাটি পরিচালনা করেন। 

 আইন-শৃংখলা থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ