রবিবার , ০৫ July ২০২০ |

আবু সালেক মুন্না, মাগুরা থেকে:
এক পুলিশ সদস্যর পরকীয়ার তার স্ত্রী অভিযোগ করেছেন,মাগুরায় এ খবর পাওয়া গেছে।বেতার কং/৫৪৯ দুল্লাফ হোসেন বর্তমান ঝিনেদাহ সদর থানাতে কর্মরত। এর বিরুদ্ধে রজুকৃত পুলিশ টিঅ্যান্ডআইএম বিভাগীয় মামলা হয় যার নং ০৮/২০২০। স্বামীর পরকীয়া সম্পর্কের কারনে নিত্যদিন নির্যাতন সহ্য না করতে পেরে পুলিশ সদর দপ্তরে অভিযোগ করেছিলেন স্ত্রী । কিন্তু তাতেও স্বামীর নির্যাতন কমেনি! এমন অভিযোগ তুলেন স্বামীর বিরুদ্ধে সেন্ট্রাল কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সেন্টার ডিএমপি কন্ট্রোলরুম ঢাকা। তারি জেরে অভিযুক্ত বেতার কং/৫৪৯ দুল্লাফ হোসেন সহ ৬ স্বাক্ষীগনকে ২৫ই জুন ডিএমপি কন্ট্রোল রুমে তলব করা হয়। 
স্ত্রী মুন্নি বলেন, অভিযোগ এরপরই বেড়েছে আরো বেশি নির্যাতনের মাত্রা। অবশেষে ‘উপায়ন্তর না পেয়ে  স্ত্রীর পরকীয়ার বলি হয়ে স্বামী সেনাবাহিনীর সদস্য লাইফ সার্পোটে, বিচার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন ২২ জানুয়ারী। এ সময় তিনি বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টাস এসোসিয়েশন (ক্রাব) সাংবাদিক সম্মেলন করেন সাংবাদিকদের সহযোগিতা কমনা করেন। গৃহবধূ মুন্নি সাংবাদিকদের জানান, প্রায় আনুমানিক চার বছর সম্পর্কে অবনতি ঘটেছে আমি আমার মায়ের কাছে থাকি,আমার স্বামী আমার কোনো ভরনপোষণ বহন করে না। এবং আমার সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই। মাঝে মধ্যে আমার ছেলের সঙ্গে কথা বলে। তিনি আরও বলেন, আমার স্বামী আমার ভাই এর স্ত্রী তারিন এর সাথে পরকীয়ায় জরিয়ে যায়। আমি তাকে নিষেধ করাই আমার সাথে খারাপ আচার-আচরণ শুরু করে, আমি নিরুপায় হয়ে আমার স্বামীর কালিকা পুর আব্দুর রশীদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাসে নিজের বাড়ি থেকে আমার বাবার বাড়ি মাগুরায় চলে আসতে বাধ্য হই। তিনি আরও বলেন, আমার ভাই আব্দুল হাদী রানা কোর্পোরাল ইন্টেলিজেন্স বিভাগ আর্মড ফোর্সের ব্যাটেলিয়ান বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে চাকরি করে। তার মটর সাইকেল দূর্ঘটনার জন্য আমার স্বামী দায়ী, তিনি মনে করেন তার কাছে থাকা +(আলাপ - চারিতার) মোবাইলে ফোনে অডিও রেকডিং ই তার প্রমাণ। তিনি আরও বলেন ১২/৬/১৯ তারিখে সকাল আনুমানিক ১১,১৫ মিনিটে আমার ভাই ও তার অফিসে কর্মরত ইমরান ইসিসি ক্লার্ক আর্মড ফোর্সেস ব্যাটেলিয়ান আমার চোখের চিকিৎসার ব্যবস্থা করার জন্য আসে পথিমধ্যে তাদের মোটরসাইকেল থেকে পড়ে যায়। তখন স্থানীয় লোকের সহযোগিতায় চিকিৎসার জন্য পাসেই ম্যাক্স হাসপাতালে নেওয়া হয়। ম্যাক্স হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ উক্ত দুর্ঘটনার বিষয় সেনাবাহিনী কে জানালে তারা এসে ভালো চিকিৎসার জন্য ঐ দিনেই সিএমএইচ ভর্তি করেন। ১২/৪/২০১৯ তারিখ হইতে আমার ভাই ঈগঐ গুরুতর অসুস্থ সঙ্গাহীন অবস্থায় আছেন।
তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করে পুলিশের সদস্য দুল্লাফ হোসেন গত ২৪ ই জুন মোবাইলে সাংবাদিকদের জানান, অভিযোগগুলোর কোনো ভিত্তি নেই। আমার স্ত্রী মুন্নি আমার কাছে থাকে না সে তার বাবার বাড়ি থাকে। এমতাবস্থায় আমি কি ভাবে ভরনপোষণ দিবো, আমার স্তী তো আমার বাড়িতে থাকবে। মুন্নির ভাবি তারিনের সাথে তার পরকীয়ার বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের মাঝে কোনো পরকীয়ার সম্পর্ক নেই। 
এদিকে মিন্নির ভাবি তারিনের সাথে কথা বলে জানা যায়, তিনি বলেন, মিন্নির এসকল অভিযোগ ভিত্তিহীন,তিনি আরো বলেন, আমার স্বামী মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে চাকরি করেন দুর্ঘটনাটির পর তিনি এখন ঈঐগ অসুস্থ হয়ে আছেন, আর আমি ঢাকাতে আছি এবং আমি এটাও জানি মুন্নি সাংবাদিক সম্মেলন করেছে, ও অভিযোগ দিয়েছে আমাদের বিরুদ্ধে। প্রসঙ্গত ১৭ বছর তাদের বিয়ে হয় এবং তাদের দুটি সন্তান রয়েছে । গৃহবধূ মুন্নির স্থায়ী ঠিাকানা মাগুরা পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড রায়গ্রামে। মাগুরা পৌরসভার মহিলা ওয়ার্ড কাউন্সিলার ছবেতারা বেগম এর মেয়ে তিনি। ঘটনার সত্যতা যাচাই করার জন্য মাগুরা পৌরসভার মহিলা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সবেত আরা বেগম এর সাথে এক সাক্ষাৎ কারে তিনি বলেন, আমার মেয়ে কে বিবাহ করেন পুলিশ সদস্য দুল্লাফ হোসেন কিন্তু বিগত বেশ কিছু দিন আমার মেয়ের ভরন পোষণ দিচ্ছেন না,এবং যোগাযোগ করে না, এই বিষয় টি আমি জানি।  

 সারা বাংলা থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ