বুধবার , ১৫ নভেম্বর ২০১৭

জিম্বাুয়ের রাজপথে অবস্থান নিয়েছে সেনাবাহিনী। রাজধানী হারারের বিভিন্ন রাস্তায় সেনাবাহিনীর বেশ কিছু সাজোয়া যান ও ট্যাংকার দেখা গেছে। তবে সেনা অভ্যূত্থানের অভিযোগ অস্বীকার করে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে দেশটির এক সামরিক কর্মকর্তা বলেছেন, সেনা অভ্যূত্থান নয়, প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবের চারপাশে যেসব দুর্নীতিবাজ রয়েছে তাদের নির্মূলে আমরা অভিযান পরিচালনা করছি।

ভাষণে জেনারেল পদমর্যাদার ওই কর্মকর্তা বলেন, আমরা জাতিকে নিশ্চিত করতে চাই, প্রেসিডেন্ট মুগাবে ও তার স্ত্রী সুস্থ আছেন, তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে। আমরা তার চারপাশে থাকা দুর্নীতিবাজদের দিকে লক্ষ্য রাখছি, যারা বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত …। যত দ্রুত আমরা অভিযান শেষ করতে পারবো, ততো দ্রুত পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে।

দেশের জাতীয় সম্প্রচারমাধ্যম জেডবিসি দখলে নিয়েছে সেনাবাহিনী। বুধবার প্রেসিডেন্টের বাসভবনের কাছ থেকে গোলাগুলির শব্দও শোনা গেছে।

তবে রাজপথে সেনাবাহিনীর অবস্থানকে কেন্দ্র করে সেনাবাহিনী প্রেসিডেন্ট মুগাবের ওপর ক্ষমতা প্রয়োগ করা হচ্ছে এমন আশঙ্কা ঘনীভূত হচ্ছে।

এর আগে মঙ্গলবার মুগাবের ক্ষমতাসীন দল যানু-পিএফ পার্টি সেনা প্রধান জেনারেল কনসটানটিনো চিয়েনগার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহমূলক আচরণের অভিযোগ আনে।

সেনাবাহিনীর এমন পদক্ষেপকে মুগাবের জন্য বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা হচ্ছে। কিন্তু মুগাবের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনী কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করছে বুধবার সকালে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে দেয়া এক বিবৃতিতে এমন কথা অস্বীকার করেছেন মেজর জেনারেল সিবুসিসো মোয়ো।

মোয়ো যে বিবৃতি পড়ে শুনিয়েছেন সেখানে বলা হয়েছে, এটা সেনাবাহিনীর সরকারের ক্ষমতা ছিনিয়ে নেয়া নয়। আমরা জাতিকে এই নিশ্চয়তা দিচ্ছি যে, মহামান্য প্রেসিডেন্ট এবং তার পরিবার নিরাপদ এবং ভালো রয়েছেন এবং তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে।

তবে এক প্রত্যক্ষদর্শী এএফপিকে জানিয়েছেন, বুধবার সকালে মুগাবের ব্যক্তিগত আবাস্থলের কাছ থেকে গোলাগুলির শব্দ শোনা গেছে। তবে সেখানে আসলেই কি ঘটছে সে বিষয়টি এখনও পরিষ্কার নয়।

 সারাবিশ্ব থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ