রবিবার , ২৬ নভেম্বর ২০১৭

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:
গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল রাজ্জাক বেপারীর তা-বে অতিষ্ঠ বরমীবাসী। 
স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, গত বছরের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বরমী ইউনিয়ন পরিষদ থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে আব্দুল রাজ্জাক বেপারী বিপুল ভোটে হেরে যায় আ’লীগের প্রার্থী মো.শামসুল আলম বাদল সরকারের কাছে। নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান দায়িত্ব বুঝে নেওয়ার পর থেকে এই ক্ষমতার পালাবদল খুব একটা স্বাভাবিক ভাবে তিনি মেনে নিতে পারেননি রাজ্জাক। এরপর থেকে উঠে পড়ে লাগে কি করে ইউনিয়ন পরিষদের পরিস্থিতি অস্বাভাবিক রাখা যায়। তাঁর সব পরিকল্পনা ব্যস্তে যাওয়ায়। পরে এই ইউনিয়নে গড়ে উঠা কিছু শিল্প প্রতিষ্ঠানে চাঁদা বাদি করে কারখানায় ভাংচুর চালায়। তাঁর হাত থেকে রক্ষা পেতে ডেলকট এ্যানভায়ারণ মেনটাল সার্ভিসেস লিঃ ফ্যাক্টরির সিকিউরিটি মো. সবুজ মিয়া চাঁদাবাজি (৪৯/০৬-১৭) মামলাটি করেন। এছাড়াও সড়ক ও জনপথের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কিংডম বিল্ডার্স লিমিটেড লোকজনদের মারধর করে চাাঁদা চাওয়ায় তার বিরুদ্ধে থানায় আরেকটি চাঁদাবাজি মামলা রুজো করে প্রতিষ্ঠানের সাইড ইঞ্জিনিয়ার রাজিব দাস। মামলার পর পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠান। আদালত তাঁর জামিনের আবেদন খারিজ করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এরপর বেশ কিছু দিন কারা ভোগ করে জামিনে মুক্ত হয়ে বরমী বাজারের সাধারণ মুদি ব্যবসায়ী থেকে শুরু কওে ইটা বালুসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ীর ওপর আবার অত্যাচার চালাতে শুরু করে। 
আদিব ট্রের্ডাসের স্বত্বাধিকারী কামাল মাহমুদ বলেন, নেশাগ্রস্ত অবস্থায় সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল রাজ্জাক বেপারী হাতে দা নিয়ে কেন্দুয়া বালু ঘাটে প্রবেশ করে। এসময় প্রতি দোকান থেকে দৈনিক তাকে চাঁদা দিতে হবে বলে ঘোষণা দেন। আমি তাঁর কথায় প্রতিবাদ করলে আমাকে বেধম মারধর করে। আমার লড়ির তেলের ট্রাংকির মূখ খোলে প্রচুর পরিমাণে বালু ভরে দেয় তিনি। এখন আমার লড়ি অচল হয়ে গেছে। তিনি আরো বলেন, আমার পাশের আরেক বালু ব্যবসায়ী সিদ্দিকের বালু কাটার বেকোর তেলের ট্রাংকির মূখ খোলে বালু ভরে দিয়ে তা অচল করে দেয়।
বালু ঘাটের চা বিক্রেতা মো.সাদির উদ্দিন। বসয় তাঁর ৭০ বছরের কাছা কাছি। এই বৃদ্ধা চা বিক্রেতাকে বালু ঘাটে চা বিক্রি করার অপরাধে বালু ট্রাকে লোড করার বেলচা দিয়ে সজোরে বুকে আঘাত করলে ঘটনাস্থলে জ্ঞান হারান ওই বৃদ্ধা। এসময় স্থানীয় লোকজন বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে হাসাপাতালে চিকিৎসা দিলে এখন সে সুস্থ বলে জানান বৃদ্ধা সাদির উদ্দিন। 
বরমী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো.শামসুল হক বাদল সরকার বলেন, তাঁর (সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল রাজ্জাক বেপারী) অত্যাচারে বরমী বাজারের ব্যবসায়ীরা ঠিকমত দোকানে বসতে পারছে না। বিকাল হলেই সবাই দোকন বন্ধ করে বাড়ি চলে যায়। কারণ সন্ধ্যার পর থেকে তাঁর (রাজ্জাক বেপারী) তা-ব শুরু হয়ে যায়। প্রতিদিন সন্ধ্যায় দা নিয়ে রাস্তা ঘাটে যাকে পায় তাকে আঘাত করে। এ বিষয়টি আমি উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটিতে বলেছি আশা করি তাঁরা আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবে।
অভিযুক্ত সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল রাজ্জাক বেপারী বলেন, আমি বৈধ ভাবে বালু ঘাটের ইজারা নিয়েছি। যে সব কারখানা আমার নামে চাঁদাবাজির মামলায় করেছে এগুলো সব হয়রানি করার জন্য মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে।
শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, স্থানীয় লোকজন পুলিশের খবর দিলে বরমী বাজারে এসে রাজ্জাক বেপারীকে পাওয়া যায়নি। এরপর থেকে তিনি পলাতক রয়েছে। তবে এবিষয়ে এখন পর্যন্ত পুলিশের কাছে কেউ লিখিত অভিযোগ দায়ের করেননি। 
গাজীপুর জেলা পুলিশের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার (কালিয়াকৈর সার্কেল) মো.শাহিদুল ইসলাম জানান, সাবেক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে এ ধরণের অভিযোগ তাঁর জানা নেই। তবে এই বিষয় গুলো শ্রীপুর থানাকে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হবে।

 ক্রাইম নিউজ থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ