রবিবার , ২৫ অক্টোবর ২০২০ |

‘করোনায় দ. এশিয়ার সরকারগুলো গণমাধ্যমকে সুরক্ষা দেয়নি’

অনলাইন ডেস্ক   বৃহস্পতিবার , ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

করোনা মহামারির সময়ে দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশের সরকার আরো বেশি কর্তৃত্বপরায়ণ হয়ে উঠেছে। দেশগুলোতে সরকারের যেকোনো সমালোচনা বন্ধে জারি করা হচ্ছে নতুন আইন ও নিয়ম-কানুন। এ সময় সরকারগুলো স্বাধীন গণমাধ্যমকে কোনো সুরক্ষা দেয়নি। মঙ্গলবার বিকেলে আর্টিকেল নাইনটিন ও মিডিয়া এডভোকেসি গ্রুপ (এমএজি) নেপালের যৌথ আয়োজনে একটি অনলাইন অনুষ্ঠানে এসব বিষয় উঠে আসে।

অনুষ্ঠানটিতে সভাপতিত্ব করেন আর্টিকেল নাইনটিনের দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ফারুখ ফয়সল। এতে আলোচক হিসেবে ছিলেন নেপালের দৈনিক অন্নপূর্ণা পোস্টের সাবেক সম্পাদক হরি বাহাদুর থাপা, ফেডারেশন অব নেপালি জার্নালিস্টের (এফএনজি) প্রেসিডেন্ট গোবিন্দ আচারিয়া এবং ইংরেজী দৈনিক হিমালয়ন টাইমসের সদ্য পদত্যাগী সম্পাদক প্রকাশ রিমাল।

আলোচনার বক্তারা বলেন, ‘চলাচলে বিধিনিষেধ এবং স্বাস্থ্য সংকটে অতিরিক্ত ঝুঁকি এই অঞ্চলে গণমাধ্যম সেক্টরের ওপর প্রভাব ফেলেছে, এতে সাংবাদিকরা নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়েছে।’ তারা আরও বলেন, ‘সামাজিক সুরক্ষা ও অর্থনৈতিক অবকাঠামোগত সুবিধার অভাবের কারণে দক্ষিণ এশিয়ার সরকারগুলো যথাযথ সহায়তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অবহেলার শিকার হয়েছে।’

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন নেপালের সংবাদমাধ্যম ‘ঘটনা রা বিচারের’ সম্পাদক ও এমএজি নেপালের নির্বাহী পরিচালক ববিতা বাসনেত। নেপালের পাশাপাশি বাংলাদেশের বিভিন্ন পর্যায়ের সাংবাদিক, সম্পাদক, মতপ্রকাশকর্মী ও মানবাধিকারকর্মীরাও এ অনুষ্ঠানে যুক্ত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে হরি বাহাদুর থাপা বলেন, ‘দুই-তৃতীয়াংশের বেশি সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোরে নেপালের বর্তমান সরকার কর্তৃত্বপরায়ণ হয়ে উঠেছে। সরকারের যে কোন সমালোচনা কঠোরভাবে দমন করা হচ্ছে। এটি সাংবাদিকদের মনে ভয় ও নিরাপত্তাহীনতা তৈরি করছে, যার কারণে বর্তমানে নেপালের গণমাধ্যমে সরকারের কোন সমালোচনা হয় না।’

গোবিন্দ আচারিয়া বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে নেপালজুড়ে ৬০০ পত্রিকা ও ৭টি রেডিও স্টেশন বন্ধ হয়ে গেছে। দুই হাজারেরও বেশি গণমাধ্যমকর্মী চাকরিচ্যুত হয়েছেন। আর বর্তমানে কর্মরত সাংবাদিকদের অন্তত ৫০ শতাংশ নিয়মিত বেতন পাচ্ছেন না।’ জীবিকার সঙ্কটের পাশাপাশি কর্মরত সাংবাদিকদের করোনা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে নির্ভরযোগ্য ও সঠিক তথ্য পাওয়ার ক্ষেত্রেও লড়াই করতে হচ্ছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

 সারাবিশ্ব থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ