বুধবার , ০৬ ডিসেম্বর ২০১৭

 ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি 
পাঁচ বছরের ফুঁটফুটে শিশু বাধন ইসলাম তাকিয়ে দেখছেন সবার দিকে। কখনও আপন মনে খেলছেন আবার কখন মায়ের কোলে উঠছেন। যেন কিছ্ইু ভাল লাগছে না তার। জন্মের এক বছর পর থেকে কিডনী সংক্রান্ত সমস্যায় আক্রান্ত  হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। সে নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার সদর ইউনিয়নের বাবুরহাট গ্রামের হতদরিদ্র আরিফুল ইসলাম লিঠু ও পারভীন আক্তারের ছোট ছেলে। আরিফুল ইসলাম বাজারের ডেকোরেটরের রাধুনীর রান্নার কাজ করত। 
তিন বছর ধরে বাধনের চিকিৎসার করে তার পিতা নিঃশ্ব হয়ে পড়েছে। ছেলের চিকিৎসার যেটুকু চাষের জমি, বসতভিটা বিক্রয় করে শেষ করেছে। তার চিকিৎসায় জন্য ইতিমধ্যে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা খরচ হয়। ফলে নিরুপায় হয়ে পড়েন হতদরিদ্র বাবা মা। বসতবাড়ীর ৮ শতাংশ জমির মধ্যে ইতিমধ্যে ৪ শতাংশ জমি বিক্রি করে দিয়েছে। দীর্ঘ ৩ বছর বাধনের চিকিৎসা ভারতে করলে তার শরীরের উন্নতি না হওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছে পরিবারটি। 
আরিফুল ইসলাম লিঠু সব কিছু বিক্রি করে অসহায় হয়ে পড়েছেন। তার পক্ষে এত টাকা সংগ্রহ করা অসম্ভব। তিনি বলেন, ৩ বছর ধরে ছেলের চিকিৎসা করতে চাষের জমি, বসতভিটা বিক্রি করে আজ প্রায় পথের ফকির হতে বসেছি। 
ছেলেটি আবারও অসুস্থ হয়ে পড়ায় উপায় না পেয়ে বসতবাড়ীর ৪শতাংশ জমি ১লক্ষ ৬০ হাজার  টাকায় বিক্রি করে  ছেলেকে নিয়ে ভারতের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা করান। চিকিৎসকরা বলছেন তার উন্নত চিকিৎসার জন্য আরও ৪-৫লক্ষ টাকার প্রয়োজন। বর্তমানে শিশুটি ভারতের চিকিৎসাধীন রয়েছে। শিশুটির উন্নত চিকিৎসা করাতে অনেক অর্থের প্রয়োজন। তাই বাধ্য হয়ে এক অসহায় পিতা তার নিঃস্পাপ সন্তানকে বাঁচাতে সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন। 
ভারতের খিস্ট্রান মেডিকেল কলেজ ভেলর কিডনী রোগের বিভাগীয় প্রধান ডাক্তার ভিসাল গলে জানিয়েছেন, পরীক্ষা নিরীক্ষায় ধরা পড়েছে শিশুটির দুটো কিডনি নস্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। শিশুটির সুস্থ করতে দীর্ঘদিন চিকিৎসা করতে হবে।  
সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা- আরিফুল ইসলাম লিঠু, মোবাইল ও বিকাশ- (পার্সনাল) ০১৭২৭২১৪৫২৮। 

 বিশেষ খবর থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ