বুধবার , ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭

মো.মনিরুল আলম,কালীগঞ্জ(গাজীপুর) : 
গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার জাঙ্গালীয়া ইউনিয়নের পশ্চিম পাড়া এলাকার মৃত ইমান আলীর ছেলে মো. হুমায়ুন কবির (৫২)পুলিশ সদস্য হিসাবে  ফেনীতে কর্মরত ছিলেন। কাজ শেষে ছুটি নিয়ে ট্রেনে বাড়ী ফেরার পথে ভৈরব-নরসিংদী মাঝামঝি এলাকায় সন্ত্রাসীরা হামলা করে সর্বত্র লুটে নিয়ে তাকে ট্রেন থেকে ফেলে দেয়।  আহত অবস্থায়  উদ্ধার করে হাসপালে ভর্তি করলে। চিকিৎসারত অবস্থায় সাভার সিআরপি হাসপালে গত সোমবার রাতে মারা যান। ওই পুলিশ সদস্য দুই সন্তানের জনক। 
গত মঙ্গলবার সকাল ১১টার সময় জাঙ্গালীয়া ফাজিল মাদ্রাসা মাঠে নিহত হুমায়ন কবিরের নামাজের জানাজা অনুষ্টিত হয়েছে। নামাজের জানাজা শেষে তাদের পারিবারিক করস্থানে লাশ দাফন করা হয়েছে।
নিহতের স্ত্রী  নাজমুন্নাহার ও তার ছেলে  নাজমুল হাসান জানান, ২০১৬ সালে ২৮ নভেম্বর  হুমায়ুন কবির টিউটি শেষে ছুটি নিয়ে ফেনি থেকে  ট্রেনে চড়ে(কালীগঞ্জ) বাড়ি আসার পথে  ভৈরব-নরসিংদী রাস্তার নিরব স্থানে অজ্ঞাত নামা সন্ত্রাসীরা তাকে ট্রেন থেকে ফেলে দেয়। তাতে করে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে লোক মারফত খবর পেয়ে তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় ওই স্থান থেকে উদ্ধার করে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পরে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবস্থার অবনতি হলে ঢামেক হাসপাতালে রের্ফাড করলে তাকে রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বেশ দিন রাজারবাগ হাসপাতালে চিকিৎসার পরে তাকে সাভার সিআরপি হাসপালে ভর্তি করা হয়। সেখানে র্দীঘ দিন চিকিৎসাধীন  থাকাবস্থায় ১৩ মাস পর গত সোমবার রাতে সে মারা যান। 
তবে নিহতের পরিবারের লোকজনদের ধারণা অজ্ঞাত নামা সন্ত্রাসীরা তাকে প্রশাসনের লোক বুঝতে পেরে ট্রেন থেকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয়। তাতে করে তার পিঠের হাড় ভাঙ্গাসহ শরীলের বিভিন্ন  অংশে গুরুতর  আঘাত প্রাপ্ত হয়।  

 আইন-শৃংখলা থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ