সোমবার , ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭

ধুলোর রাজ্যে ঢাকা বিষাদময় !

  সোমবার , ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭

হাসান হামিদ: আমরা যারা ঢাকায় থাকি, নানা কাজে প্রতিদিন বের হতে হয়; তারা আজকাল সবচেয়ে বেশি সম্মুখীন হই সীমাহীন ধুলোবালির নাক-মুখ বন্ধ হয়ে আসেসারাবছর রাস্তা খুঁড়াখুঁড়ি করে জমে থাকা মাটি শীতকালে ধুলো হয়ে উড়েআর আমরা সাধারণ মানুষ ধুলার রাজত্বে অসহায় হয়ে মুখে অনেকেই মুখোশ পড়িএই ধুলার কারণে একদিকে বেড়েছে ভোগান্তি, অন্যদিকে রোগবালাই

সম্প্রতি বিশ্বের ৯১টি দেশের এক হাজার ছয়শটি শহরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দূষিত ২০টি শহরের তালিকায় রয়েছে ঢাকা এবং এর পাশ্ববর্তী নারায়ণগঞ্জ গাজীপুর  পরিবেশদূষণের ওপর পর্যবেক্ষণ চালিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) তথ্য জানিয়েছেবাংলাদেশে ধূলা দূষণ নিয়ন্ত্রণে একটি আইন প্রণয়নের দাবীতে পরিবেশবাদী একটি সংগঠন রাজধানী ঢাকায় সোমবার মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেপরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন নামের এই সংগঠনটি বলছে, গোটা দক্ষিণ এশিয়ার মতো বাংলাদেশেও ধূলা দূষণ পরিবেশ স্বাস্থ্যগত সমস্যার একটি বড় কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে 

পরিবেশবাদী সংগঠন পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের (পবা) এক গবেষণায় দেখা গেছে, রাজধানী ঢাকায় বিভিন্ন ধরণের দূষণের মধ্যে ধূলা দূষণের অবস্থান শীর্ষে এর কারণে জনস্বাস্থ্যের ওপর ক্ষতির প্রভাব বাড়ছেজীবাণুমিশ্রিত ধূলায় দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে নানা রোগব্যাধি

গবেষণায় আরো দেখা গেছে, ধূলার কারণে রাজধানী ঢাকাবাসীর মধ্যবিত্ত একটি পরিবারের প্রতিমাসে কমপক্ষে হাজার টাকা থেকে ১০ হাজার টাকা পযর্ন্ত অতিরিক্ত ব্যয় হয় এর কারণে পরিধেয় কাপড় চোপড়সহ ঘরের আসবাবপত্র ধূলায়ভরে যায়এগুলো পরিস্কার করতে উল্লেখযোগ্য সময় অর্থ নষ্ট হয়এতে পানি বিদ্যুতেরও অপচয় বাড়েএজন্য পরিবেশ স্বাস্থ্যের ওপর নেতিবাচক প্রভাব বিবেচনায় একটি কাযর্কর আইন প্রণয়নের দাবিও জানায় প্রতিষ্ঠানটি

নগরীর বিভিন্ন স্থানে ফ্লাইওভার নির্মাণ, রাস্তা সংস্কার কিংবা উন্নয়নের নামে খোঁড়াখুঁড়ি চলছে উন্মুক্তভাবেনিয়ম অনুযায়ী নির্মাণ এলাকা ঘেরাও করে কাজ করার কথা থাকলেও তা না করে মাটি, বালি, পাথর ইত্যাদি রাস্তার ওপর ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখা হচ্ছে দিনের পর দিন গাড়ির চাকায় সেগুলো পিষ্ট হয়ে ধুলা ছড়িয়ে পড়ছে বাতাসে

পত্রিকার তরফ থেকে জেনেছি, নগর বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, ঢাকার বাতাসে ধুলার দূষণ অতীতের সব মাত্রা ছাড়িয়ে গেছেএর ফলে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছে রাজধানীবাসীবিশেষ করে নির্মাণ এলাকার বাসিন্দা পথচারীদের দীর্ঘমেয়াদে ফুসফুসের ক্যান্সার, শ্বাসকষ্টসহ জটিল কঠিন রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে ক্ষেত্রে শিশুরা রয়েছে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থানেইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি ফর রিসার্চ অন ক্যান্সারের (আইএআরসি) এক গবেষণায় দূষিত বাতাসে ৯৭০টি সিনথেটিক কেমিক্যাল নিরূপণ করা সম্ভব হয়েছে- যেগুলোর মধ্যে ৪৬৪টি কেমিক্যালের কারণে ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যায়রাজধানীর বাতাসে ধুলার পরিমাণ এখন ভয়াবহ মাত্রায় পৌঁছেছে এই ধুলাযুক্ত বাতাস গ্রহণের ফলে প্রাথমিকভাবে শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন রোগ দেখা দিতে পারে দীর্ঘমেয়াদে এর ক্ষতি হবে অনেক বেশি তাছাড়া ক্যান্সার তৈরির সঙ্গে যুক্ত কিছু রাসায়নিক হলো- ইউরিয়া, প্যারাবিন, থ্যালেট, পেট্রোলিয়াম বাই প্রডাক্টস, প্রোপাইলিনএগুলোর বেশির ভাগই পানির সঙ্গে মেশে নাযার ফলে এগুলো ধুলার সঙ্গে বাতাসে উড়তে থাকেফলে শ্বাসপ্রশ্বাসের মাধ্যমে মানুষের শরীরে গিয়ে ধীরে ধীরে ফুসফুসে ক্যান্সার সৃষ্টি করতে পারে

ফ্লাইওভার নির্মাণ কাজের স্থান ঘুরে দেখা গেছে, ফ্লাইওভার নির্মাণের কারণে রাস্তায় ব্যাপক ধুলাবালি উড়ছে ধুলা নিয়ন্ত্রণে নির্মাণ প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিয়মকানুন মেনে চলার নির্দেশনা থাকলেও বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না তারা ছাড়া নগরীর মোহাম্মদপুর, বাবুবাজার, রায়েরবাজার, ধানমন্ডি, যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ, গুলিস্তান, মালিবাগ কাকরাইলসহ রাজধানীর বেশির ভাগ এলাকাই এখন ধুলার চাদরে মোড়ানোএসব এলাকার বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ধুলার কারণে তাদের নানা রকম রোগব্যাধি তো হচ্ছেই, পাশাপাশি প্রতিদিন ধুলা পরিষ্কার করতে গিয়েও গলদঘর্ম হচ্ছেন তারা মোহাম্মদপুর এলাকার গৃহিণী রাবেয়া খাতুন বলেন, প্রতিদিনই দেখা যায় আসবাবপত্রের ওপর ধুলার পুরু আস্তরণ পড়েছেজামাকাপড় ঘরদোর পরিষ্কার রাখতে গিয়েই তাকে মাসে বাড়তি টাকা গুনতে হয় বলে জানান তিনি

ঢাকা শহরে ধুলা নিয়ন্ত্রণের ব্যাপারে সিটি কর্পোরেশন কোনো ব্যবস্থা নিয়েছে কি না, তা জানতে চাইলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা ইনামুল হক বলেন, ঢাকা শহরে ধুলা বেড়েছে ফ্লাইওভার নির্মাণ রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ির পরে মাটি না সরিয়ে দিনের পর দিন রাস্তায় ফেলে রাখার কারণেআর ফ্লাইওভার এলাকায় সিটি কর্পোরেশনের গাড়ি দিয়ে ফ্লাইওভার কর্তৃপক্ষ দিনে দুবার পানি ছিটাচ্ছেতবে সিটি কর্পোরেশন ধুলাদূষণ রোধে বিশেষ কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি বলে জানান তিনি তিনি আরো বলেন, সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে শহরের বেশির ভাগ সড়কে সকালে ঝাড়দেয়া হয়ঢাকা শহরে মানুষ বেশিহওয়ায় গাড়ি চলাচল বেশি হওয়ায় দিনে একবারের বেশি ঝাড়দেয়া পানি ছিটানো সম্ভব হয় না বলে জানান তিনি রাস্তায় বিভিন্ন নালা পরিষ্কার করার পর এর বর্জ্য অপসারণের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে কর্মকর্তা বলেন, নালা পরিষ্কারের পর যে বর্জ্য থাকে তা শুকানোর আগ পর্যন্ত গাড়িতে তোলা যায় না

বিশেষজ্ঞরা জানান, ধূলার মাধ্যমে বাতাসে নানা রোগের জীবাণু ছড়ায় এবং শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত সমস্যা দেখা দেয়বিশেষ করে যাদের এলার্জি রয়েছে তাদের চরম মূল্য দিতে হচ্ছে এছাড়া শিশু বৃদ্ধরা সর্দি-কাশিসহ ফুসফুসের নানান রোগে আক্রান্ত হচ্ছেমাত্রাতিরিক্ত ধূলায় পথচারী এবং যানবাহনের যাত্রীদের অনেকেই নানান রোগে আক্রান্ত হচ্ছেনমাসের পর মাস নগরীর কেন্দ্রস্থলে এই ধূলার মহোৎসব হলেও কর্তৃপক্ষ নির্বিকারধূলা নিয়ন্ত্রণের প্রাথমিক দায়িত্বপ্রাপ্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনও বিষয়ে ন্যূনতম কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না 

নিয়মিত রাস্তা পরিষ্কার করা, পরিসেবার সংযোগ মেরামত, বৃদ্ধি নতুন সংযোগ স্থাপনের সময় রাস্তা খননে সৃষ্ট মাটি সম্পূর্ণরূপে সরিয়ে ফেলা, দালানকোঠা বা অন্যকোনো অবকাঠামো তৈরির সময় নির্মাণ সামগ্রী রাস্তার ওপর বা রাস্তার পাশে খোলা জায়গায় না রাখাধূলা সৃষ্টিকারী কোনো সামগ্রী বহনের ময় সঠিক আচ্ছাদন প্রতিরোধ ব্যবস্থা নেয়াড্রেনের আবর্জনা রাস্তার পাশে জমিয়ে না রাখাআবর্জনা যথাযথ স্থানে ফেলা আবর্জনা সংগ্রহ পরিবহনের সময় সতর্কতা অবলম্বন করা ফুটপাতসমূহ নিয়মিত পরিষ্কার করা বাইরে থেকে ঢাকায় প্রবেশ করা যানবাহনগুলো যথাযথভাবে পরিষ্কার করাসরকারের সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন তার যথাযথ বাস্তবায়ন করাধূলা দূষণ বন্ধে নাগরিক সচেতনতা তৈরির জন্য সরকার বেসরকারি সংগঠন সচেতন মহলকে যথাযথ দায়িত্ব পালন করতে হবে ধূলাদূষণ নিয়ন্ত্রণ করতে হলে তার উৎসগুলোকে বন্ধ করতে হবেএজন্য প্রয়োজনে নতুন করে আইন প্রণয়ন করা যেতে পাবে 

বেলা যত বাড়ে তত বাড়ে ধুলো-বালিসকাল থেকে রাত অবধি ঢাকার বাতাসে উড়ে বেড়ায় অজস্র ধুলোকণা রাস্তায় মোড়ে গর্ত-খোঁড়াখুড়ি, গাড়ির বিকট হর্ন, সঙ্গে কালো ধোঁয়া প্রতিটি মোড় আর সড়কের দৃশ্য ভয়াবহ করে তুলছেপ্রতি মুহূর্তে ঘিঞ্জি করে একের পর ইট-সুড়কির দেয়াল উঠছে ঢাকায়যা থেকে ছড়িয়ে পড়ছে মারাত্মক পরিবেশ দূষণ প্রকট হচ্ছে জনস্বাস্থ্য সমস্যা এসব সমস্যায় সবচেয়ে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন শিশু-কিশোর বৃদ্ধরা 

হেমন্ত,শীতের সময়টায় বৃষ্টি নেই সময়টা উপভোগ্য হলেও সময়ের প্রধান বিড়ম্বনা ধূলাশহরের বিভিন্ন এলাকায় চলা নির্মাণ কাজ বাড়িয়ে দিয়েছে এই ধূলা বহুগুণেতাই ধূলার নগরীতে পরিণত হয়েছে রাজধানী ঢাকা এখননগরীর বিভিন্ন স্থানে ফ্লাইওভার নির্মাণ, মেট্রো রেলের জন্য খোড়াখুড়ি, রাস্তা সংস্কার এবং তিতাস ওয়াসার খোঁড়াখুঁড়িসহ নানা কারণে বাড়ছে ধূলার রাজত্বএতে পথচারীসহ বিভিন্ন যানবাহনের যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে ফলে বাড়ছে জটিল কঠিন রোগের আশঙ্কা

 

 

 উপ-সম্পাদকীয় থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ