সোমবার , ০৮ জানুয়ারী ২০১৮

মোঃ রহমত আলী, হবিগঞ্জ থেকে ॥ বাংলা হবিগঞ্জে টানা কয়েক দিনের হাড় কাপানো তীব্র শৈত্য প্রবাহে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। ঘন কুয়াশায়র প্রভাবে তীব্র থেকে তীব্র হয়ে উঠেছে শীত। ফলে শিশু, বৃদ্ধ মানুষ ও গবাদিপশুসহ ঠান্ডায় কাঁপছে । কন কনে তীব্র শীতে কর্ম চাঞ্চল্যতা কমে গেছে অনেকটা । সকাল থেকে ঘন শীশীরের গভীর থেকে সূর্যের আলো উকি দিতে দুপুর পর্যন্ত গড়িয়ে পড়ে। ফলে বয়ে যাওয়া পশ্চিমা শীতল হাওয়ায় ঠান্ডা আরো তীব্র হয়ে উঠে। গরীব, হতদরিদ্র, মানুষের গায়ে মোটা গরম কাপড় না থাকায় হালকা গরম কাপড়ের সাহয্যে তীব্রতা শীতের দাপট কমাতে পারে না। ফলে লোকজন বাড়ির আঙ্গিনায় অথবা চুলোয় বসে বসে খর জ্বালিয়ে আগুনের তাপ নিচ্ছেন শিশু ও বুড়– বয়সের লোকজন। তাছাড়া হাঁস-মুরগি ও গরু-ছাগল গবাদি পশুর গায়ে দেয়া হচ্ছে পাটের তৈরী মোটা চট।  যেন কিছুটা হলে শীতের তীব্রতা লাঘব হয়। 
তীব্র শীতে রেল স্টেশন, ফুটপাত ও বিভিন্ন খোলা স্থানে আশ্রয় নেওয়া ছিন্নমূল মানুষের দুর্ভোগ বেড়েই চলেছে। এদিকে সকালে তীব্র ঠান্ডায় ও ঘন কুয়াশায় কাজে বের হতে পারছে না মানুষ। এছাড়াও বিকেল থেকেই তাপমাত্রা নিম্নগামী হওয়ায় সন্ধ্যার পরপরই ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার ও দোকানপাট। খুব প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছে না কেউ। গরম কাপড়ের অভাবে সবচেয়ে বিপাকে পড়েছে হতদরিদ্র ও ছিন্নমূল মানুষ। কাজে বের হতে না পারায় পরিবার পরিজন নিয়ে বিপাকে পড়েছেন শ্রমজীবী মানুষ।

 সারা বাংলা থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ