সোমবার , ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮

আনিসুর রহমান মোল্লা, কুমিল্লা দাউদ কান্দি থেকে: বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণারয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মেজর জেনারেল অবসর প্রাপ্ত সুবিদাআলী ভূইয়া দুই বার এমপি হওয়ার পর বর্তমান সরকারের জনকল্যাণ মূখি বিভিন্ন প্রকল্প এবং উদ্যোগগুলো বাস্তবায়নের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থাকে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, প্রাথমিক স্তরে ভালো বীজ তৈরী করতে পারলে মাধ্যমিকে ভালো ফলাফল আশা করতে পারবো। যার জন্য প্রাথমিক শিক্ষাস্তরকে এগিয়ে নেওয়ার মাল্টিমিডিয়ার পদ্ধতিতে পাঠ দানের সকল উপকরণ বিতরণ করেছি। যার সুফল আমরা পেতে শুরু করেছি। 
দাউদকান্দি ও মেঘনা উপজেলা নিয়ে কুমিল্লা ১ আসন গঠিত। দাউদকান্দি উপজেলায় ১টি পৌরসভা ও ১৫টি ইউনিয়ন এবং মেঘনা উপজেলায় ৮টি ইউনিয়ন নিয়ে এই আসন গঠিত। দাউদকান্দি ভোটার সংখ্যা ২ লক্ষ ৬৩ হাজার ও মেঘনা উপজেলায় ভোটার সংখ্যা ৮৭ হাজার ৬ শত ৪৬ ভোটার। সর্ব মোট ভোটার সংখ্যা হলঃ ২ লক্ষ ৯৩ হাজার ৯শত ৪৬ ভোট প্রায়। আগামী সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দাউদকান্দি উপজেলা ও মেঘনা উপজেলার কুমিল্লা-১ আসনে এরই মধ্যে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা প্রাথমিক প্রচার শুরু করেছেন। রঙ্গিন পোষ্টার, ফেষ্টন ব্যানার ও ডিজিটাল ব্যানারে ছেয়ে গেছে এলাকা। এই আসনটি এক সময় বিএনপির দুর্গ হিসাবে পরিচিত ছিল। পরে বিএনপি দলের মধ্যে কোন্দল চরম আকারের সৃষ্টি হওয়ারয় এই আসন আর বিএনপির অনুকুলে নাই বলে জানা গেছে।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, বিএনপির কর্মীদেরকে ডা: খন্দকার মোশারফ হোসেন মূল্যায়ন করেনি। তাই বিএনপির ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়েছে। একটি সূত্রে জানা যায়, প্রত্যক গ্রামে গ্রামে বিএনপি ক্ষমতা থাকা কালীন এমপি ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন প্রত্যেক গ্রামে গ্রামে ঝগড়া বিবাধ সৃষ্টি করে রেখেছিল। তাই আজ তার নেতিবাচক অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। যে কারণে এই আসনের জনগণ আর ড. খন্দকার মোশারফ হোসেনকে আর এমপি হিসাবে চায় না বলে বিভিন্ন সুত্র জানিয়েছে। 
ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন এর নামে দুদকে মামলা হয়েছে বলে জানা গেছে। এত টাকা সে কোথায় পেল সে একজন গরীব ঘরের সন্তান। সে দুই বার মন্ত্রী হয়ে কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে বলে জানা যায়। বর্তমানে তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে মর্মে কথা উঠেছে।  প্রথম নির্বাচনের সময় কোন টাকা পয়সা তার হাতে ছিল না। সম্পূর্ণ ধার করে নির্বাচন করেছেন। একটি কথা না বললে না, ১৯৭১ সালে মেজর জেনারেল (অবঃ) সুবিদআলী ভূইয়াকে স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নিতে উদ্ধুদ্ব করেছিল বঙ্গবন্ধুর সুবিশাল নেতৃত্বে। এবিষয়ে মেজর জেনারেল (অবঃ) সুবিদআলী ভূইয়া জানান, বঙ্গবন্ধুর ডাকেই আমরা মুক্তিযুদ্ধে ৯ মাস যুদ্ধ করেছি। বিশ্বের অন্যন্যা দেশের মুক্তির সংগ্রাম যে ভাবে সংগঠিত হয়েছিল। আমরা ও যেভাবে মরণ-পণ লড়াই করে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছি। ইতিহাসে এমন অসংখ্যা উদাহরণ আছে। তিনি বলেন, জাতির মুক্তি সংগ্রামে নেতা একজনই। বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বেলা ও এটি প্রযোজ্য। মেজর জেনারেল (অবঃ) সুবিদ আলী ভূইয়া এমপি হওয়ার পর নির্রীহ লোকের কর্মস্থান করে দিয়েছি। 
পর পর দুই বার এমপি হওয়ার মেজর জেনারেল (অবঃ) সুবিদআলী ভূইয়া তার নিজ এলাকা দাউদকান্দি ও মেঘনা উপজেলাকে উন্নয়ন করেছেন দেখার মতো। রাস্তাঘাট, ব্রীজ, কালবার্ট, ভাঙ্গা মেরামত করে যোগাযোগ করে ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। বর্তমান ২টি উপজেলার জনসাধারণ তার নানামুখী উন্নয়ন দেখে অনেক খুশী। যে কারণে আসন্ন নির্বাচনে পুনরায় তিনি কুমিল্লা-১  আসনের এমপি হয়ে আসবেন এ আশাবাদ এখন সবার মুখে মুখে। 

 রাজনীতি থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ