মঙ্গলবার , ২০ এপ্রিল ২০২১ |

ছুটির আমেজে ঢাকা ছাড়ছে মানুষ

অনলাইন ডেস্ক   রবিবার , ০৪ এপ্রিল ২০২১

কমলাপুর রেল স্টেশন দেখা যায় যাত্রীদের প্রচণ্ড ভিড়। টিকিটের জন্য ছিল দীর্ঘ লাইন। টিকিট প্রত্যাশীদের এই লাইন ছাড়িয়ে যায় স্টেশনও। ছবি: ফোকাস বাংলা।

সোমবার থেকে সারা দেশে সাত দিনের লকডাউন তথা কঠোর বিধিনিষেধ শুরু হচ্ছে। এদিকে বিধিনিষেধ আসতে পারে এমন ঘোষণার পর শনিবার দুপুরের পর থেকেই ঢাকা ছাড়তে শুরু করে মানুষ।

রবিবার সকাল থেকে বাস টার্মিনাল, রেল স্টেশন, লঞ্চ ঘাট এবং বিমানবন্দরে ছিল ঘরমুখো মানুষের ভিড়। কঠোর বিধিনিষেধ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, সোমবার সকাল ৬টা থেকে দেশের সব ধরনের গণপরিবহন- ট্রেন, বাস, নৌযান ও অভ্যন্তরীন বিমান চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে।

সরেজমিন গাবতলী, মহাখালী ও সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল, সদর ঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এবং শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দেখা যায় মানুষের উপচে পড়া ভিড়। নেই স্বাস্থবিধির বালাই।

অর্ধেক যাত্রী নেওয়ার সরকারি বিধিনিষেধ থাকায় গণপরিবহন সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। লোকজনকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা গাড়ির জন্য অপেক্ষা করতে দেখা গেছে।

বাস মালিক সমিতির সভাপতি খন্দকার রফিকুল হোসেন কাজল বলছেন, ছোট ছোট ব্যবসা করেন এমন মানুষজন এবং দিন হিসেবে যাদের মজুরি হয়, তারাই বেশি যাচ্ছেন ঢাকা ছেড়ে। রোজগার বন্ধ থাকবে এই আশংকা থেকে শহর ছাড়ছেন তারা।

তিনি বলেন, ঢাকা ছেড়ে যাওয়া মানুষের মধ্যে উত্তরবঙ্গে কয়েকটি জেলার এবং পূর্ব অংশের কুমিল্লা, নোয়াখালী এবং চট্টগ্রামের রুটে বেশি ভিড় দেখা গেছে।

কমলাপুর রেল স্টেশন দেখা যায় যাত্রীদের প্রচণ্ড ভিড়। টিকিটের জন্য ছিল দীর্ঘ লাইন। টিকিট প্রত্যাশীদের এই লাইন ছাড়িয়ে যায় স্টেশনও।

এদিকে সদরঘাটে দেখা যায়, লঞ্চের ডেকে ও সিটে ৫০ শতাংশ যাত্রী ফাঁকা রাখার কথা থাকলেও ভিড়ের চাপ সামলাতে গিয়ে অনেকেই স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে পারেননি।

হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে বিমান যাত্রার জন্য চেক-ইন লাইনে যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে দেখা যায়নি। মুখে মাস্ক থাকলেও, সামাজিক দূরত্ব রেখে লাইনে দাঁড়াতে দেখা যায়নি অনেককেই।

 রাজধানী থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ