শনিবার , ১৯ মে ২০১৮

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি:

নড়াইল সদর উপজেলার আউড়িয়া ইউনিয়ানের লস্করপুর গ্রামের দুই যুবককে বিদেশে পাঠাতে চেয়ে দশ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক কর্মকর্তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। ওই কর্মকর্তার নাম আলমগীর হোসেন খান। সে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ জিয়াউর রহমান হলের উপ-রেজিষ্ট্রার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। 

গত বৃহস্পতিবার নড়াইল নালিশী আদালতে প্রতারণার অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় হাজিরা দিতে গেলে বিচারক জাহিদুল আজাদ তার জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, নড়াইল সদর উপজেলার আউড়িয়া ইউনিয়ানের লস্করপুর গ্রামের অহিদুজ্জামান এবং বাগবাড়ি গ্রামের শাহিদুল ইসলামের সাথে আলমগীর খানের পূর্ব থেকে পরিচয় ছিল। দুইজনকে সিঙ্গাপুর পাঠানোর কথা বলে ২০১৭ সালের ৫ জানুয়ারি স্ট্যাম্পে লিখিত চুক্তির মাধ্যমে দশ লাখ টাকা নেন তিনি। 
ছয় মাসের মধ্যে তাদেরকে সিঙ্গাপুর পাঠানোর বিষয়ে চূড়ান্ত কথা দেন। সে অনুযায়ী তাদের দুজনকে পাসপোর্ট করে দেন। পাসপোর্ট হাতে পেয়ে আলমগীরের উপর তাদের বিশ্বাস বেড়ে যায়। 

কিন্তু ৬ মাস পার হওয়ার পরে আলমগীর তাদের সাথে তালবাহনা করতে থাকেন। এতে তাদের সন্দেহ তৈরি হয়। টাকা ফেরত চাইলে গড়িমসি শুরু করে দেয় আলমগীর। 

নিরুপায় হয়ে ২০১৭ সালের ২৮ নভেম্বর লিখিত স্ট্যাম্পের চুক্তিনামা দেখিয়ে শহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে নড়াইল সদর নালিশী আদালতে প্রতারণার অভিযোগে মামলা দায়ের করেন।

আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে আলমগীরের বিরুদ্ধে সমন জারি করেন। সমন পেয়ে বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন তিনি। আদালত জামিন না মঞ্জুর করে তাকে কারাগারে প্রেরনের নির্দেশ দেন।

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এস এম আব্দুল লতিফ বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই। এ বিষয়ে খোঁজখরব নিব এবং কর্তৃপক্ষে সাথে আলোচনা করে পদক্ষেপ নিব।’

 আদালত থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ