মঙ্গলবার , ১৭ July ২০১৮

অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়কারী চক্রের ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। উদ্ধার করা হয়েছে আব্দুল হক রাজ (৬১) নামে অপহৃত ওই ব্যক্তিকে। গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন- সবুজ (৪২), বশির (৩০), ফারুক (৩৬), লাভলু (৪০) ও জালাল মিয়া (৩৬)। গতকাল সোমবার ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান ডিএমপির ওয়ারী বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন।
ডিসি বলেন, রাজধানীর গেন্ডারিয়া থেকে গত ১২ জুলাই শাহ্ সিমেন্ট কোম্পানির সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভ (এসআর) আব্দুল হক রাজকে সিমেন্টের অর্ডার দেওয়ার কথা বলে আশা নামের এক তরুণী তার বাসায় ডেকে নেয়। ফোন পেয়ে আব্দুল হক গেন্ডারিয়ার সোনালী-নুপুর কমিউনিটি সেন্টারের সামনে যান। এরপর আশা আব্দুল হককে কনস্ট্রাকশন সাইটের লোকজনের সঙ্গে কথা বলার জন্য টঙ্গীর দত্তপাড়ার একটি তিন তলা বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে আগে থেকেই কয়েক ব্যক্তি ছিল। তারা আব্দুল হককে সেখানে আটকে রেখে ভয়ভীতি দেখায় ও মারধর করে। পরিবারের কাছে মুক্তিপণ হিসেবে দুই লাখ টাকা বিকাশের মাধ্যমে আনার জন্য আব্দুল হককে চাপ প্রয়োগ করে। তার পরিবার বিষয়টি পুলিশকে জানালে পুলিশ তাকে উদ্ধারে কাজ শুরু করে।

পরবর্তীতে গত রবিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে অপহূত আব্দুল হককে তুরাগ থানার কামার পাড়ার জালাল মিয়ার বাসা থেকে উদ্ধার করে। এসময় বশির, ফারুক, জালালকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে টঙ্গী থেকে সবুজ ও লাভলুকে গ্রেফতার করা হয়। তবে আশা নামে ওই তরুণীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান ডিসি।

 রাজধানী থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ