মঙ্গলবার , ২৮ আগষ্ট ২০১৮

রাজু আহমেদ ধর্ম ত্যাগ করায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   মঙ্গলবার , ২৮ আগষ্ট ২০১৮

বাংলাদেশেরচাঁদপুর জেলা শহরের নিউট্রাক রোডের বাসিন্দা আমেরিকায় কর্মরতমৃত মো: কবির হোসেনের পুত্র রাজু রাহমেদ ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করে খ্রীস্টান ধর্ম গ্রহণ করার কারণে সে দীর্ঘদিন যাবৎনিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। এলাকাবাসী আত্মীয়স্বজন বিক্ষুব্ধভাবেপ্রতিবাদ করছে। রাজুকে তার এলাকাবাসী আত্মীয় স্বজনবিভিন্ন ভাবে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছে। এই অবস্থায় তারমা হাছনেয়ারা বেগম আমেরিকার প্রশাসনের কাছে তার ছেলে রাজু আহমেদের নিরাপত্তার সহযোগীতা কামনা করছে।

রাজুআহমেদের মাতা হাছনেয়ারা জানায়, আমার ছেলে রাজু আহমেদ ১৯৯৬ সালে উচ্চ শিক্ষার উদ্দেশ্যে আমেরিকায় যায়। আমেরিকায় কর্মরত হওয়ার পর রাজু ইসলামধর্ম ত্যাগ করে খ্রীস্টান ধর্ম গ্রহণ করে। দীর্ঘদিন আমেরিকায় থাকার পর ১৯৯৯ সালেরডিসেম্বরে বাংলাদেশে ফিরে খ্রীস্টান ধর্মের নিয়ম-কানুন পালন করলে তার বাবা-মা তাকে নিষেধকরে। রাজুর এলাকাবাসী আত্মীয় স্বজনতার খ্রিস্টান ধর্ম গ্রহণ করছে জেনে তাকে কয়েকবার আটক করে লাঞ্চিত মারধরকরে। যারফলে রাজুকে হত্যা পরিবারকে হুমকিদিয়ে আসছে এলাকাবাসী আত্মীয়স্বজনরা। সেইপরিস্থিতিতে রাজু ২০০০ সালের জানুয়ারি মাসে বাংলাদেশ ছেড়ে আমেরিকায় যায়। পরে তার বাবা-মা প্রতিবেশীদের আত্মীয়স্বজনদের হুমকির কারণে নিজ বাসা ছেড়ে বিভিন্ন জায়গায় এখনো থাকছে। এর মধ্যে রাজুরশোকে তার বাবা মারা যায় এবং মা তার ছেলেরদুশ্চিন্তায় ভুগছে।

তারমা আরো জানায়, রাজু দীর্ঘদিন যাবৎ আমেরিকায় থাকার পরও তাকে হত্যার আমাকে নিজবাড়িতেনা আসার হুমকি দিচ্ছে তার প্রতিবেশী আত্মীয়স্বজনরা। এইঅবস্থায় রাজু তার পরিবারআমেরিকায় থাকলে তার পরিবার নিরাপদে থাকবে। রাজুর ভবিষ্যৎ জীবনের নিরাপত্তার জন্য আমেরিকার প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তার মা হাছনেয়ারা বেগম।

রাজুরআত্মীয় মোঃমোতালেব হোসেন মিয়াজী জানায়, রাজু ধর্ম ত্যাগ করে আমাদের আত্মীয়তার সম্পর্কের কলঙ্ক করেছে। এজন্য বাংলাদেশে আসলেই তাকে হত্যা করা হবে। যাতে করে তার পরিবার সবাই যেনজীবনে শিক্ষাপায় ধর্ম ত্যাগ করা মহাপাপ। এলাকাবাসী জানায়, দীর্ঘদিন থেকে রাজুর মা-বাবা এইএলাকায় বসবাস করছে। আমরা জানি রাজু উচ্চ শিক্ষার উদ্দ্যেশ্যে বিদেশ যায়। কিন্তু বিদেশ থেকে সে দেশে এসেআমদের ছেলেদের সাথে সম্পর্ক করে তাদেরকে খ্রিস্টান ধর্ম গ্রহণ করার বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করে।আমরা তাদের পরিবারকে এই এলাকা ছেড়েচলে যাওয়ার জন্য বলেছি। রাজু শুনেছি পালাইয়া বাংলাদেশ ছেড়ে আমেরিকায় চলে গেছে। কিন্তু তার পরিবার তার ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত নেয় নাই। এজন্য রাজু আমাদের এলাকায় আসলে তার হাত পা গুরো গুরোকরে জীবনের শিক্ষা দিয়ে দিবে। কেন সে আমাদের ধর্মত্যাগ করে কলঙ্ক করেছে।

 আইন-শৃংখলা থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ