সোমবার , ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮

দেশকাল রিপোর্ট:পরিবেশের ওপর জলবায়ুপরিবর্তনের প্রভাব আশংকাজনক হয়ে উঠেছে। বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির কারণে প্রাকৃতিক ভারসাম্যদিন দিন নষ্ট হচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব পড়েছে মৎস্যসম্পদের ওপরও। এক সময় ইলিশসহবিভিন্ন প্রজাতির দেশি মাছের প্রাচুর্য ছিল। দেশীয় বিভিন্ন প্রজাতির মিঠা পানির মাছ ক্রমশহারিয়ে যাচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনসহ বিভিন্ন কারণে ইলিশ উৎপাদন কমে গিয়েছে। এই অবস্থাথেকে বেরিয়ে আসতে দ্রুত সমাধানের পথ খুঁজতে হবে। এসব কথা বলেছেন, পরিবেশ বিজ্ঞানীসহমৎস্য ও প্রাণিসম্পদ বিশেষজ্ঞগণ।জলবায়ু পরিবর্তনের জন্যদায়ী বিভিন্ন কারণ চিহ্নিত করে তার সমাধানে কার্যকর উপায়সমূহ বের করার লক্ষে রাজধানীতেএক সংলাপ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশ সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড স্টাডিজ বিসিএএসসম্প্রতি মৎস্য ভবনের কনফারেন্স রুমে এ সংলাপের আয়োজন করে। ‘ইকোসিস্টেম বেজডঅ্যাপ্রোচেস টু অ্যাডাপ্টেশন টু ক্লাইমেট চেঞ্জ : স্ট্রেইনদেনিং দ্য এভিডেন্স অ্যান্ড ইনফরমিংপলিসি প্রজেক্ট’ শীর্ষক সংলাপ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট জলবায়ু বিশেষজ্ঞ বিসিএএসেরনির্বাহী পরিচালক ড. এ আতিক রহমান। সংলাপ অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেনপরিবেশ বিভাগের মহাপরিচালক ড. সুলতান আহমেদ, মৎস্য বিভাগের মহাপরিচালক মো. গুলজারহোসেন এবং পরিবেশ বিভাগের পরিচালক সোলায়মান হায়দার।সংলাপে মূলপ্রবন্ধউপস্থাপন করেন বিসিএএসের সিনিয়র ফেলো মো. লিয়াকত আলী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরঅধ্যাপক ড. মনিরুল ইসলাম। সংলাপে সমন্বয়কের দায়িত্বে ছিলেন বিসিএএসের সিনিয়র প্রোগ্রামঅফিসার সাবাকুন নাহার পরশ।প্রবন্ধে দেশীয় মিঠা ওস্বাদু পানির নানা প্রজাতির মাছসহ ইলিশের উৎপাদন কমে যাওয়ার কারণসমূহ উঠে আসে। এসবকারণের মধ্যে রয়েছেÑ জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব, প্রাকৃতিক বিপর্যয়, ফসলি জমিতে অপরিকল্পিতকীটনাশক ব্যবহার, জলবায়ু দূষণ, উজানে বাঁধ নির্মাণ, নদ-নদী খাল-বিলের নাব্যতা হ্রাস,মাছের অভয়ারণ্য, ডিম ছাড়ার আগেই মা মাছ মেরে ফেলা, প্রজনন সময়ে অবাধে মাছ নিধন। প্রবন্ধেইলিশের উৎপাদন কমে যাওয়ার কারণসমূহ নির্ণয় করা হয়।প্রবন্ধে বলা হয়,সরকারের মৎস্য বিভাগের সময়োচিত কিছু পদক্ষেপের কারণে দেশে ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে।কিন্তু প্রজনন মৌসুমে ইলিশ নিধন পুরোপুরি বন্ধ হয়নি। এক্ষেত্রে মৎস্যজীবীদের খাদ্য ও অন্যান্যচাহিদা পূরণের বিষয়ে সরকারকে সক্রিয় ভূমিকা রাখতে হবে।সংলাপে ইকোসিস্টেমবেজড অ্যাডাপটেশন (ইবিএ) ব্যবহার ও প্রয়োগের ওপর জোর তাগিদ দেয়া হয়। এক্ষেত্রে আন্তর্জাতিকবিভিন্ন সংগঠন, সরকার এবং সংগঠনসমূহের মধ্যে সমন্বিতভাবে এবং পরিকল্পিত উপায়ে কার্যক্রমপরিচালনার সুপারিশ করা হয়

 বিশেষ খবর থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ