সোমবার , ২২ July ২০১৯ |

জোয়ারের পানিতে কুতুবদিয়ার ১৫ গ্রাম প্লাবিত

নিজস্ব প্রতিবেদক   শনিবার , ০৬ July ২০১৯

বৈরি আবহাওয়ায় ভারী বর্ষণ এবং ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত থাকায় সাগরের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে ৪-৫ ফুট উচ্চতা বেড়ে যাওয়ায় কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় ১৫ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। তবে প্লাবিত এলাকার লোকজনকে নিরাপদ স্থানে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার আলী আকবর ডেইল, ধুরংসহ মুরালিয়া, জেলেপাড়া, তাবলরচর, কাইয়ারপাড়া, বায়ুবিদ্যুৎ এলাকা, আকবরবলীঘাট, চর ধুরুংসহ ১৫টি গ্রাম জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে। সকাল থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপক কুমার রায় এসব এলাকা ঘুরে দেখেন এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহায়তায় ওইসব স্থানের শতাধিক পরিবারকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেন।

ইউএনও দীপক কুমার রায় জানান, বৈরি আবহাওয়া, সাগরে ৩ নম্বর সর্তকতা সংকেতের পাশাপাশি পূর্ণিমার কারণে স্বাভাবিকের চেয়ে ৪-৫ ফুট উচ্চতায় জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। যে কারণে মানুষকে কিছুটা ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে। তিনি আরো জানান, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করে বেড়িবাঁধ ভাঙন এলাকায় বসবাসরত লোকজনকে নিরাপদ স্থানে সরে যেতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এরইমধ্যে শতাধিক পরিবারকে নিরাপদ স্থানে সরিয়েও নেওয়া হয়েছে।

কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আলহাজ ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, কুতুবদিয়া দ্বীপের ৪০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধের মধ্যে প্রায় ২০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ সাগরে বিলীন হয়ে গেছে। এসব বেড়িবাঁধের ভাঙা অংশ দিয়ে পানি ঢুকে প্লাবিত হয়েছে ১৫টি গ্রাম। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে কয়েকশ পরিবার।

 জাতীয় থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ