রবিবার , ১৭ নভেম্বর ২০১৯ |

গাজীপুরের শ্রীপুরে উপজেলার রাজাবাড়ী ইউনিয়নে মাত্র দুই কিলোমিটার সড়কের বেহাল দশায় যোগাযোগে বিঘ্ন ঘটছে দুই উপজেলার ৭ গ্রামের  লাখো মানুষের। রাজাবাড়ি ইউনিয়নের ইজ্জতপুর বাজার থেকে হালুকাইদ নতুনবাজার পর্যন্ত সড়কের দুই পাশেই রয়েছে ইজ্জপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ইজ্জতপুর উচ্চ বিদ্যালয়, মোসলিম কেয়ার এ্যাডোকেশন স্কুল দারুল উলুম হাফিজিয়া কওমি মাদ্রাসা ও এতিম খানা, সিরাজী মডেল এ্যাকাডেমিসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। দুর্ভোগ মাথায় নিয়েই নিয়মিত যাতায়াত করেন শিক্ষার্থীসহ গ্রামবাসীরা। গত বৃহস্পতিবার সকালে ইজ্জতপুর এলাকার সড়কটিতে গিয়ে দেখা যায়, এর শুরুতেই বড় ৩টি গর্তে পানি জমে আছে। লোকজন চরম কষ্টে জুতা হাতে নিয়ে গর্তে জমাট বাঁধা পানি মাড়িয়ে পথ চলছেন। এর পরের অংশে কাদায় ভড়া। পুরো দুই কিলোমিটার সড়কের শুরুতেই ইজ্জতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের অবস্থান। এ ছাড়া সড়কের অন্যান্য অংশের পাশেও রয়েছে মাদ্রাসাসহ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। দুই কিলোমিটার পেরিয়ে হালুকাইদ নতুনবাজার পর্যন্ত গিয়ে দেখা যায় সেখান থেকে পিচ সড়ক। এটি রাজাবাড়ি বাজারের সাথে যুক্ত হয়েছে।

সড়কটি ধরে পাশের গাজীপুর সদর উপজেলায় ভ্রমণ করেন এই এলাকায় ৭টি গ্রামের মানুষ। দুই কিলোমিটার সড়কের দুর্ভোগের কারণে দুই উপজেলার সড়ক যোগাযোগে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে বলে স্থানীয়রা জানান। ইজ্জতপুর গ্রামের হাফিজ উদ্দিন জানান, মুক্তিযুদ্ধের পর পর এই সড়কটি তৈরি হয়। গাজীপুরের বিভিন্ন সড়কে পিচ করা হলেও গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটিতে উন্নয়নের ছোঁয়া পড়েনি। তিনি জানান, সড়কটি উন্নয়ন হলে হালুকাইদ, পাবরিয়ারচালা, কুড়লপাড়া, দলজুড়, ধলাদিয়া, রাজাবাড়িসহ আশপাশের বেশ কিছু গ্রামের মানুষের চলাচলে সুবিধা হবে। এই দুই কিলোমিটার রাস্তাটি করা হলে গাজীপুর সদর উপজেলা ও শ্রীপুর উপজেলার ৭ গ্রামের লাক্ষ মানুষের সাথে সড়ক যোগাযোগে নতুন মাত্রা সৃষ্টি হবে। একই গ্রামের কামাল হোসেন বলেন, দেশ জুড়ে সড়ক যোগাযোগে উন্নয়ন হলেও শিল্প এলাকার এই সড়কটিতে কেউ নজর দেয়নি।

আমরা প্রতিদিন খুব কষ্টে এই সড়কে চলাচল করি। হালুকাইদ গ্রামের আব্দুল মান্নান জানান, স্কুল-মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের জন্য সড়কটি খুবই ঝুকিপূর্ণ। অথচ মাত্র ২ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার করা হলে ৭টি গ্রামের মানুষের ভোগান্তি লাঘব হতো। এ বিষয়ে রাজাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের ৯নং ওয়ার্ড সদস্য আব্দুর রশিদ জানান, এই সড়কটির বিষয়ে স্থানীয় সাংসদের কাছে দাবি উত্থাপন করা হয়েছে। তিনি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এই সড়কের কাজ করবেন বলেছেন। আগামি কয়েক মাসের মধ্যেই সড়কটিতে কাজ শুরু হওয়ার কথা। রাজাবাড়ি ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড সদস্য মিজানুর রহমান নিহার জানান, মানুষকে চরম কষ্টে চলাচল করতে হচ্ছে সড়কটিতে। আমরা চাই সড়কটি দ্রুত উন্নয়নের আওতায় আসুক। কালভার্টের পর হালুকাইদ পর্যন্ত ইট বিছানো হয়েছিল। কিন্তু এখন তা ভেঙে গেছে। শ্রীপুর উপজেলা প্রকৌশলী শরিফুজ্জামান জানান, সরকার অবকাঠামোগত উন্নয়নে ব্যপক কাজ করছে। এই সড়কটির বিষয়ে স্থানীয় সাংসদ উদ্যোগ নিলে ও বরাদ্ধ পেলে কাজ করা হবে।

 সারা বাংলা থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ