মঙ্গলবার , ১২ নভেম্বর ২০১৯ |

কারওয়ান বাজারে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

অনলাইন ডেস্ক   বৃহস্পতিবার , ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে সড়ক ও ফুটপাতের পাশে গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে নেমেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোশেন-ডিএনসিসি। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সগির হোসেন ও সাজিদ আনোয়ারের নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা থেকে রেললাইনের পাশ থেকে অভিযান শুরু হয়।

অভিযানে কারওয়ানবাজারে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের আঞ্চলিক অফিসের পশ্চিম দিকে তেজগাঁও থানা আওয়ামী লীগের কারওয়ানবাজার শাখা, জনতা টাওয়ারের পশ্চিমে জাতীয় যুব সংহতি ও উত্তর দিকে জাতীয় শ্রমিক লীগ এবং স্যোশাল ইসলামী ব্যাংকের নীচে কৃষক লীগের তেজগাঁও থানা কার্যালয় উচ্ছেদ করা হয়।

বেলা ২টার পর কারওয়ানবাজারের কাঠপট্টি এলাকায় দোকান মালিকদের একটি তিন তলাবিশিষ্ট আধাপাকা স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করে কাঠ ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ঈসমাঈল মোল্লা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “মেয়র হানিফ সাহেবের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে আমরা এখানে বসেছিলাম। প্রায় ৩০ বছর ধরে করছি।

“আমরা বারবার সিটি করপোরেশনকে রাজস্ব দিতে চেয়েছি।কিন্তু তারা নিতে রাজি হয়নি। তাহলে আমরা কীভাবে অবৈধ হলাম?” অভিযানে ১০০ জন কাঠ ব্যবসায়ীর মোট ১০ কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সগির হোসেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ফলপট্টি এলাকা থেকে অভিযান শুরু হয়েছে। কারওয়ান বাজারে সিটি করপোরেশনের সব রাস্তা ও ফুটপাতের পাশের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে তবেই অভিযান শেষ হবে।

এর আগে বেলা ১টায় উচ্ছেদ কার্যক্রম পরিদর্শনে এসে ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, কারওয়ান বাজারের রাস্তা ও ফুটপাত অবৈধ স্থাপনামুক্ত রাখতে ব্যবসায়ী, জনপ্রতিনিধি ও পুলিশের সমন্বয়ে মনিটরিং টিম গঠন করা হবে। “প্রয়োজনে আজকেই এই মনিটরিং টিম গঠন করা হবে।যেসব এলাকায় আজকে উচ্ছেদ অভিযান হয়েছে, সেখানে রাস্তা ও ফুটপাত যেন আর পুনর্দখল না হয় তারা নিয়মিত খোঁজখবর রাখবে।” উচ্ছেদ অভিযান শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারওয়ান বাজারে ডিএনসিসির আঞ্চলিক কার্যালয়ে অবস্থানের ঘোষণা দেন তিনি।

 রাজধানী থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ