বুধবার , ১৩ নভেম্বর ২০১৯ |

নোবেল বিজয়ী অভিজিৎ ব্যানার্জিকে এম শোয়েব চৌধুরীর শুভেচ্ছা

নিজস্ব প্রতিবেদক   মঙ্গলবার , ১৫ অক্টোবর ২০১৯

দেশকাল প্রতিবেদক:
‘ডেইলি এশিয়ান এজ’ ও ‘দৈনিক দেশকাল’ পত্রিকার সম্পাদকীয় বোর্ডের চেয়ারম্যান এম শোয়েব চৌধুরী বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়কে ২০১৯ সালে অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার অর্জনের জন্য অভিনন্দন জানিয়েছেন।
টেলিফোনে এই নোবেল বিজয়ীর সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে শোয়েব চৌধুরী দারিদ্র্য বিমোচনের ক্ষেত্রে ব্যানার্জির অবদানের ভূয়সী প্রশংসা করেন।
তিনি বলেন, নোবেল পুরস্কার পাওয়ার ক্ষেত্রে তাঁর সাফল্যে বাংলাদেশের জনগণও গর্বিত। শোয়েব চৌধুরী আরও বলেন, তাঁর এ পুরস্কার বাংলাদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গ উভয় বাংলার জনগণের জন্যে এক বিশাল গর্ববোধ তৈরি করেছে। 
এম শোয়েব চৌধুরীর অভিনন্দনের প্রতিক্রিয়ায় নোবেল বিজয়ী  অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘আমাকে অভিনন্দন জানানোর জন্য আপনাকেও অনেক শুভেচ্ছা।’ তিনি জানান, ‘সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে পরবর্তীতে ‘ডেইলি এশিয়ান এজ’ ও ‘দৈনিক দেশকাল’ পত্রিকায় বিস্তারিত আলোচনা করব।’ ব্যানার্জির পাশাপাশি তাঁর স্ত্রী এস্তের ডুফলোও একই বিভাগে নোবেল পেয়েছিলেন।
উল্লেখ্য, অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায় অমর্ত্য সেনের ছাত্র। তাঁর লেখাপড়া কলকাতায়। বাবা দীপক বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন কলকাতার তৎকালীন প্রেসিডেন্সি কলেজের অর্থনীতির অধ্যাপক। অভিজিতের জš§ মুম্বাইতে ১৯৬১ সালে হলেও তাঁর শৈশব কেটেছে কলকাতায়। সাউথ পয়েন্ট স্কুলে পড়াশোনা। এরপর প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে অর্থনীতিতে ডিগ্রি নিয়ে চলে যান দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর পড়তে। সেখান থেকে তিনি চলে যান হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখান থেকে ১৯৮৮ সালে ‘ইনফরমেশন ইকোনমিকস’-এর ওপর তিনি পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।  বাঙালি বংশোদ্ভূত 
ভারতীয়-আমেরিকান অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায় ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজির ফোর্ড ফাউন্ডেশন আন্তর্জাতিক অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক। 

 বিশেষ খবর থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ