বৃহস্পতিবার , ২১ নভেম্বর ২০১৯ |

রাজধানী ঢাকার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বর্তমানে অনেক ভালো রয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা: শফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমরা সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করতে পুলিশে এসেছি। আমাদের পরিবার কেমন থাকবে তা না ভেবে সাধারণ মানুষের নিরাপত্তায় দিন-রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছি।

তিনি আজ রোববার ডিএমপি সদর দপ্তরে পুলিশ সদস্যদের চাকরি থেকে অবসর উপলক্ষে আয়োজিত এক বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। সদ্য অবসর নেয়া পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশ্যে ডিএমপি কমিশনার বলেন, আমরা সবাই একে অপরের সাথে থেকে কাজ করেছি। অবসরে গিয়ে আপনারা কথনও নিজেকে একা মনে করবেন না, মনে করবেন না আপনাদের পাশে কেউ নেই, আমরা আপনাদের পাশে আছি।

তিনি বলেন,‘এখন অবসরে গিয়ে পরিবার পরিজনকে সময় দিবেন। আপনারা পরিবার নিয়ে সুস্থতার সাথে সুখী-শান্তিতে থাকবেন এই দোয়াই করি।’ ডিএমপি কমিশনার আরো বলেন, ডিএমপি বাংলাদেশ পুলিশের সর্ববৃহৎ একক ইউনিট। আপনারা ভাগ্যবান এই ইউনিটে চাকরি করে সম্মানের সাথে অবসর যাচ্ছেন। আপনাদের সাথে কর্মরত অনেকে এমন অবসরে যেতে পারেনি।

শফিকুল ইসলাম বলেন, আপনাদের সবার প্রতি আমরা কৃতজ্ঞতা জানাই। আপনাদেও ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ্র প্রয়াসে ডিএমপি আজ বর্তমান অবস্থানে এসেছে এবং ঢাকা শহরের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অনেক ভালো রয়েছে। সবাই মিলে মিশে একটি প্রতিষ্ঠানের পাশে দাঁড়িয়েছি। অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন) মীর রেজাউল আলম স্বাগত বক্তব্যে বলেন, আপনাদের দীর্ঘ দাপ্তরিক জীবন থেকে একটি সফল সমাপ্তি ঘটলো। আপনারা বাকী সময়টুকু পরিবার নিয়ে সুখে শান্তিতে সুস্থতার সাথে বসবাস করবে এমন প্রত্যাশা রইল। আমরা আপনাদের পাশে ছিলাম, ভবিষ্যতেও থাকব।

অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ পরিদর্শক আব্দুর রশিদ তার অনুভুতি ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, দীর্ঘদিন সুনামের সাথে বাংলাদেশ পুলিশে চাকরি করেছি। অবসর গ্রহণ করাটা চাকরির একটি অংশ। অতি দ্রুত আমাদের পেনশনের কাজ করে দেয়ায় সকলকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশে কর্মরত ৯৩ জন পুলিশ সদস্যকে ফুল, ক্রেস্ট ও মানপত্র দিয়ে বিদায় জানান ডিএমপি কমিশনার।

ডিএমপি’র সদর দপ্তর ও প্রশাসন বিভাগের আয়োজনে এই বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় ডিএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়, মফিজ উদ্দিন, আব্দুল বাতেনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। - বাসস

 রাজধানী থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ