বুধবার , ১৩ নভেম্বর ২০১৯ |

ঢাকার পর চট্টগ্রাম থেকে মদিনায় বিমানের উড়াল

অনলাইন ডেস্ক   বৃহস্পতিবার , ৩১ অক্টোবর ২০১৯

ঢাকার পর চট্টগ্রাম থেকে সৌদি আরবের মদিনায় বিমান বাংলাদেশের সরাসরি ফ্লাইট চালু হল। বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রামের শাহ আমানত আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দরে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী ফ্লাইটের উদ্বোধন করেন।

এরপর দুপুর সোয়া একটায় ২৬৫ জন যাত্রী নিয়ে বিজি-১৩৭ ফ্লাইটটি চট্টগ্রাম ছেড়ে যায়। ফ্লাইটটি মদিনার স্থানীয় সময় বিকাল সাড়ে পাঁচটায় পৌঁছাবে। মদিনা থেকে ফিরতি ফ্লাইট বিজি-১৩৮ স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সোয়া সাতটায় ছেড়ে পরদিন চারটা ২৫ মিনিটে চট্টগ্রাম পৌঁছাবে।

প্রাথমিকভাবে চট্টগ্রাম-মদিনা রুটে বিমান প্রতি বৃহস্পতিবার সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করবে। পরবর্তীতে যাত্রী বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে ফ্লাইটও বাড়ানো হবে বলে বিমান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান, বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মো. মোকাব্বির হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, “মক্কা-মদিনায় চট্টগ্রামের লোক বেশি। প্রচুর লোক প্রতি বছর হজ ও ওমরাহ করতে যান, চট্টগ্রামের সম্ভবত বেশি। যারা মধ্যপ্রাচ্যবাসী এবং নিয়মিত যাতায়াত করেন তাদের জন্য এ ফ্লাইট।”

এর আগে গত সোমবার চালু হয় বিমানের ঢাকা-মদিনা ফ্লাইট। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স বিশ্বসেরা বিমান সংস্থা হয়ে উঠবে এ প্রত্যাশা করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “চট্টগ্রামের মানুষের ভ্রমণ যাতে সহজ সুন্দর হয় সেজন্য চট্টগ্রাম থেকে মদিনার পথে এ সরাসরি ফ্লাইট চালু করা হল।

“মধ্যপ্রাচ্য, ভারতীয়সহ বিভিন্ন বিমান সংস্থা আসতে উদগ্রিব। আমাদের হ্যান্ডলিং ক্ষমতা বাড়াতে হবে। এ লক্ষ্যে কাজ করছি। চট্টগ্রাম থেকে পূর্বমুখী ফ্লাইট বাড়াতে উদ্যোগ নেওয়া হবে। বিমানের কাছে যারা টাকা পায় তা পরিশোধ করা হবে। পরিশোধ করেই আমরা সামনের দিকে অগ্রসর হব।”

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান বলেন, “চট্টগ্রাম  অঞ্চলের বহুলোক মক্কা-মদিনায় বসবাস করেন। এটা অনেক দিনের দাবি ছিল। এটা শুধু চট্টগ্রামবাসীর আশা নয়, আর্থ সামাজিক বিষয়ও জড়িত। প্রতিটি বিমানবন্দর ব্যস্ত হয়ে উঠছে। চট্টগ্রাম বিমানবন্দর সহসা সম্প্রসারণ ও রানওয়ের উন্নয়ন করব। আরও দুটি বোর্ডিং ব্রিজ লাগানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।”

বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোকাব্বির হোসেন বলেন, বিমানের এখন নিজস্ব ১০টি আধুনিক নতুন উড়োজাহাজ আছে। আরও ছয়টি এয়ারক্রাফট আছে ভাড়ায়। “ব্যবসায়িক কারণে নতুন রুট ও গন্তব্য বৃদ্ধি করছি। তারই ধারাবাহিকতায় ঢাকা-মদিনা ফ্লাইট চালু হয়েছে।”

তিনি বলেন, “চট্টগ্রাম থেকে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন গন্তব্যে সরাসরি ফ্লাইট চলাচল শুরু হয়েছে। আরও দুটি নতুন ড্রিমলাইনার ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে যুক্ত হবে। তখন আরও ফ্লাইট বাড়ানো হবে।” বিমানের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মদিনা ফ্লাইট উদ্বোধন উপলক্ষ্যে উভয় রুটের যাত্রীদের জন্য টিকেটে ১৫ শতাংশ ছাড় দেওয়া হয়েছে।

বিমানের সেলস সেন্টার, ট্রাভেল এজেন্ট, বিমানের ওয়েবসাইট www.biman-airlines.com   এবং বিমানের কল সেন্টার থেকে টিকেট কেনা যাবে।

 নগর-মহানগর থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ