বৃহস্পতিবার , ২১ নভেম্বর ২০১৯ |

রংপুরকে হারিয়ে রোমাঞ্চকর জয় খুলনার

দেশকাল স্পোর্টস ডেস্ক:   মঙ্গলবার , ০৫ নভেম্বর ২০১৯

জাতীয় ক্রিকেট লিগে (এনসিএল) রোমাঞ্চকর এক জয়ের দেখা পেয়েছে খুলনা বিভাগ। আর এই জয়ে টায়ার-১ এর শীর্ষে অবস্থান করছে খুলনা। মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে রংপুর বিভাগের বিপক্ষে ১ উইকেটের ব্যবধানে জয় পেয়েছে খুলনা। রংপুর বিভাগের দেওয়া ২০৩ রানের জয়ের লক্ষ্য স্পর্শ করতে খুলনাকে হারাতে হয় ৯ উইকেট।

রংপুরের বিপক্ষে এই জয়ে ২৬.৪৬ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টায়ার-১ এর টেবিলের শীর্ষ স্থানে আরও পোক্ত করেছে খুলনা বিভাগ। অন্যদিকে ৮.২২ পয়েন্ট নিয়ে টায়ার ওয়ানের পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে রয়েছে রংপুর।

চতুর্থ রাউন্ডের শেষ দিন মঙ্গলবার (০৫ নভেম্বর) মিরপুরে জয়ের জন্য আব্দুর রাজ্জাকের দলের প্রয়োজন ছিল ৭৩ রান। আর খুলনাকে হারাতে রংপুরের দরকার ছিল ৫ উইকেট। ২০৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে তৃতীয় দিনে ৫ উইকেট হারিয়ে খুলনা সংগ্রহ করে ১৩০ রান। উইকেটে ছিলেন প্রথম ইনিংসে শতক হাঁকানো মেহেদী হাসান এবং জিয়াউর রহমান। এর আগে প্রথম ইনিংসে আব্দুর রাজ্জাকের ৭ উইকেটে রংপুরের ইনিংস থামে ২২৪ রানে। আর জবাবে মেহেদী হাসানের ১১৯ রানে খুলনা অলআউট হয় ২৩৩ রানে। রংপুরের হয়ে রবিউল ইসলাম নেন পাঁচ উইকেট।

দ্বিতীয় ইনিংসে রংপুরকে আবারও জেঁকে ধরেন খুলনার বোলাররা। প্রথম ইনিংসের ন্যয় দ্বিতীয় ইনিংসেও বল হাতে ঘূর্ণি যাদু দেখিয়েছেন আব্দুর রাজ্জাক। দ্বিতীয় ইনিংসে খুলনার অধিনায়কের ৫ উইকেটে রংপুর অলআউট হয় ২১১ রানে। খুলনার সামনে জয়ের জন্য লক্ষ্য দাঁড়ায় ২০৩ রানের। তৃতীয় দিনে ইমরুল কায়েস, তুষার ইমরান এবং নুরুল হাসান সোহান ব্যাট হাতে ব্যর্থ হলে মাত্র ১৩০ রান তুলতেই খুলনার ৫ জন ব্যাটসম্যান সাজঘরে ফিরে যান।

চতুর্থ দিনে মিরপুরের উইকেটে ৫ উইকেট নিয়ে জয়টা বেশ কষ্টসাধ্যই ছিল কারণ তৃতীয় দিনেই বল অনেক বেশি টার্ন পাচ্ছিল। আর নি:সন্দেহে শেষ দিনে সেই টার্ন আরও বেশি হবে বৈকি কম নয়। চতুর্থ দিনে ৫ উইকেট আর ১৩০ রান নিয়ে খেলতে নামা খুলনাকে জয়ের পথে রাখে প্রথম ইনিংসে শতক হাঁকানো মেহেদী হাসান। তার সঙ্গে জিয়াউর রহমানও যোগ্য সঙ্গ দিয়েছেন। দুইজনই তুলে নিয়েছেন অর্ধশতক। তবে দলীয় ১৭৭ রানের মাথায় মেহেদী ৫৬ রান করে সোহরাওয়ার্দী শুভ’র বলে বিদায় নেন। ভাঙে ১০৯ রানের ষষ্ঠ উইকেটের জুটি।

এর এক ওভার পরেই ৫৩ রান করা জিয়াউরকেও ফেরান শুভ। দ্রুত দুই উইকেট হারিয়ে এবং সেট দুই ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে চাপে পড়ে যায় খুলনা। এরপর এক ওভার পেরুতেই আব্দুর রাজ্জাক ও রুবেল হোসেনের উইকেট হারিয়ে নিশ্চিত হারের মুখে পড়ে যায় খুলনা। স্কোরবোর্ডে তখন ৯ উইকেট হারিয়ে ১৮৭ রান পরাজয়ের শঙ্কা রূপসা পাড়ের দলটির।

কিন্তু খুলানার জয়ের আশা বাঁচিয়ে রাখেন মঈনুল ইসলাম।আব্দুল হালিমকে সঙ্গে নিয়ে ঠান্ডা মাথায় ৩২ বলে ১৬ রানের ইনিংস খেলে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান তিনি। আর১ উইকেট হাতে রেখে ২০৩ রানের জয়ের লক্ষ্য পূরণ করে রোমাঞ্চকর জয় ছিনিয়ে আনে খুলনার জন্য। রংপুরের হয়ে সোহরাওয়ার্দী ৬টি, মাহমুদুল হাসান ২টি ও মুকিদুল ইসলাম ১টি উইকেট নেন।

প্রথম ইনিংসে দারুণ সেঞ্চুরির পর দ্বিতীয় ইনিংসে অর্ধ-শতক পাওয়ায় খুলনার মেহেদী হাসান ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হয়েছেন। আর দুই ইনিংস মিলিয়ে ১২ উইকেট তুলে নিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ছয়শত উইকেটের মাইল ফলক স্পর্শ করেছেন খুলনার অধিনায়ক আব্দুর রাজ্জাক।

 খেলাধুলা থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ