বুধবার , ১৩ নভেম্বর ২০১৯ |

গোপালগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি: প্রফেসর ড. শামছুল আরেফিন গোপালগঞ্জের একজন কৃত্তি সন্তান। গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার পাইককান্দি ইউনিয়নের পুখুরিয়া গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তাঁর জন্ম। পিতা মরহুম শেখ আব্দুল মান্নান, পেশায় ম্যাজিস্ট্রেট ও সিএসপি অফিসার ছিলেন। মাতা রাবেয়া খাতুন, গৃহিনী। প্রফেসর ড. শামছুল আরেফিন ছিলেন পাঁচ ভাই-বোনদের মধ্যে দ্বিতীয়। ছোট থেকেই তিনি অত্যন্ত মেধাবী ও শান্ত স্বভাবের ছাত্র ছিলেন। তিনি ১৯৮৫ সালে খুলনায় রোটারী স্কুল হতে বাণিজ্য বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় যশোর বোর্ডের মধ্যে ১ম স্থান অধিকার করেন এবং ১৯৮৭ সালে খুলনা ব্রজলাল (বিএল) কলেজ হতে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ১ম বিভাগে উত্তীর্ণ হন। ঐ একই বছরে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর জুনিয়র কমিশন পদে নির্বাচিত হন। তবে তিনি চাকুরীতে যোগদান না করে ভর্তি হন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়-এ। পরবর্তীতে ১৯৯৪ সালে উক্ত বিশ্ববিদ্যালয় হতে বি.কম-এ ১ম শ্রেণিতে ১ম স্থান অর্জন করেন এবং ১৯৯৬ সালে এম.কম-এ ১ম শ্রেণিতে ১ম স্থান লাভ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেন। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ভাল ফলাফলের জন্য তাকে ডিন’স অ্যাওয়ার্ড স্বর্ণপদক এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন কর্তৃক সর্বোচ্চ ফলাফলের জন্য তাকে স্বর্ণপদক প্রদান করেন। এছাড়াও তৎকালীন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত আব্দুল জলিল ও সাবেক পানি সম্পদ মন্ত্রী প্রয়াত ব্যারিষ্টার আব্দুর রাজ্জাক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় হতে কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল অর্জন করায় তাকে সনদ ও স্বর্ণ পদক প্রদান করেন। বর্তমানে তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ম্যানেজমেন্ট বিভাগে প্রফেসর পদে নিয়োজিত থেকে অসংখ্য জ্ঞানপিপাসু শিক্ষার্থীদের মাঝে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দিচ্ছেন। গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্ভাব্য উপাচার্যদের তালিকায় প্রফেসর ড. শামছুল আরেফিন এর নামও শোনা যাচ্ছে।

 ফিচার থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ