রবিবার , ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯ |

মহান মুক্তিযুদ্ধ ও আমাদের গৈৗরব

কে এম মাসুদুর রহমান   শুক্রবার , ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯

মুক্তিযুদ্ধে আমাদের বিজয়ের পেছনে কাজ করেছিল মত-পথ-জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সবার এ যুদ্ধে অংশগ্রহণ। এ জন্যই সম্ভব হয়েছিল আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত শক্তিশালী পাকিস্তানি সেনাবাহিনীকে মাত্র নয় মাসে পরাজিত করা।

১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর নয় মাসের মুক্তিযুদ্ধ শেষে ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) আত্মসমর্পণ করেছিল পাক হানাদার বাহিনী। চূড়ান্ত বিজয়ের মধ্য দিয়ে অভু্যদয় ঘটে বাঙালির স্বাধীন রাষ্ট্র বাংলাদেশের। বিজয়ের অনুভূতি সবসময়ই আনন্দের। তবে একই সঙ্গে দিনটি বেদনারও। অগণিত মানুষের আত্মত্যাগের ফসল আমাদের স্বাধীনতা। আমরা গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করি মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের। যেসব নারী ভয়াবহ নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন তাদের। এ দেশের মানুষের আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক অধিকার তথা স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে সফল নেতৃত্ব দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কোটি কোটি মানুষকে তিনি স্বাধীনতার মন্ত্রে উজ্জীবিত করে তুলেছিলেন। তার সঙ্গে ছিলেন একই লক্ষ্যে অবিচল একদল রাজনৈতিক নেতা। তাদের সবাইকেই আমরা গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি।

বিজয় দিবস মানেই বাঙালির নবজন্মকাল। বর্বর পাকিস্তানি হানাদার সেনাবাহিনী আর তাদের এ দেশীয় দোসর শান্তি কমিটি, রাজাকার, আলবদর, আলশামস বাহিনীকে চূড়ান্তভাবে পরাজিত করার দিন। আর জাতি হিসেবে বাঙালির সহস্র বছরের সাধনা শেষে অর্জিত চূড়ান্ত বিজয়ের দিন। স্বাধীন জাতি হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার দিন। বিজয়ের এই দিনে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের আত্মত্যাগ ও সম্ভ্রম হারানো মা-বোনদের গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করি। তাদের রক্তে, অবদানে মুক্ত হয়েছিল স্বদেশ। উড়ছে পত পত করে স্বাধীন দেশের লাল-সবুজের পতাকা। সাড়ে সাত কোটি মানুষের অসীম ত্যাগ আর সাহসিকতার ফসল ছিল মুক্তিযুদ্ধের বিজয়। রাজনৈতিক নেতৃত্বের অকুতোভয় সংগ্রাম, রাজনৈতিক নির্দেশনায় লড়াই করেছেন মুক্তিযোদ্ধারা, যাদের অবদান এই স্বাধীন দেশ।

একাত্তরের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নিরস্ত্র বাঙালির ওপর মেশিন গান, কামান, ট্যাঙ্ক নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। শুরু করেছিল নির্বিচার হত্যাযজ্ঞ। রুখে দাঁড়িয়েছিল বাঙালি বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে। তুলে নিয়েছিল হাতে প্রতিরোধের অস্ত্র। গড়ে তুলেছিল দুর্গ। সম্মুখসমরে জীবনবাজি রেখে লড়াই করেছিল। সেদিন কেবল পাকিস্তানি সেনার সঙ্গে নয়, তাদের এ দেশীয় দোসরদের বিরুদ্ধেও লড়াই করতে হয়েছে। বিজয়ের চূড়ান্ত মুহূর্তে আলবদর, রাজাকাররা বাঙালির শ্রেষ্ঠ সন্তানদেরও হত্যা করে। মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমণে পাকিস্তানি হানাদার ও তাদের সহযোগীরা পর্যুদস্ত হয়ে আত্মসমর্পণে বাধ্য হয়। রেসকোর্স ময়দানে ১৬ ডিসেম্বর বিকেলে মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনীর কাছে নিঃশর্ত আত্মসমর্পণ করে পাকিস্তানি সেনারা। দখলদার বাহিনীর হাত থেকে মুক্ত হয় বাংলাদেশ।

যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ যখন পুনর্গঠনের পথে ঠিক তখন স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি মাথা তুলে দাঁড়ায়। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর সামরিক স্বৈরশাসকরা পরাজিত শক্তির শুধু পুনর্বাসন নয়, রাষ্ট্র ক্ষমতায়ও অংশীদার করে। স্বাধীনতার পর পর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার অব্যাহত থাকে। কিন্তু সামরিক জান্তা শাসকরা সে বিচারের পথ রুদ্ধ করে দেয়। সারূপ্রাপ্তসহ বিচারাধীনদের কারাগার থেকে মুক্ত করে রাজনীতির চৌহদ্দীতে নিয়ে আসে। শাসকরা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিকৃতই কেবল নয়, ধামাচাপা দিয়ে রাখে, যাতে পরবর্তী প্রজন্ম ইতিহাস ধারণ করতে না পারে। কিন্তু যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবি ক্রমশ প্রকট হতে থাকে। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে বিচারের প্রক্রিয়া শুরু করেন নির্বাচনী ওয়াদানুযায়ী। বিচারের বাণী নীরবে নিভৃতে কেঁদে ফেরার পথ রুদ্ধ করে দেন।

বাঙালি জাতি যত দিন বেঁচে থাকবে, মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে গৌরব করবে, অহঙ্কার করবে। অন্যদিকে সেদিন যারা পাকিস্তানিদের দোসর ছিল সে রকম কিছু কুলাঙ্গারের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হবে। তারা নতুন নতুন ষড়যন্ত্রের জাল বুনবে। স্বাধীনতার সব অর্জনকে নস্যাৎ করার জন্য তৎপর হবে। তাদের ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সজাগ থাকতে হবে। মনে রাখতে হবে, এ বিজয় আনতে কত বুকের তাজা রক্ত দিতে হয়েছে, কত মূল্য দিতে হয়েছে, কত ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে। বায়ান্নর একুশে ফেব্রম্নয়ারি থেকে শুরু করে উনসত্তরের গণ-আন্দোলন, সত্তরের নির্বাচন, একাত্তরের শুরুতে অসহযোগ আন্দোলনসহ অনেক আন্দোলন-সংগ্রাম ও সর্বশেষ মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে আমাদের এই জায়গায় পৌঁছাতে হয়েছে। আর সে ক্ষেত্রে আমরা ঋণী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে। আমরা ঋণী মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক, তাজউদ্দীন আহমদসহ সে সময়ের আরো অনেক নেতা-নেত্রীর কাছে। মনে রাখতে হবে বিশ্ববাসীর সমর্থন ও বিভিন্ন দেশের সহযোগিতার কথা। বিশেষ করে, ভারত ও তদানীন্তন সোভিয়েত ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার কথা। আমরা তাদের সবার ঋণ কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করি।

মুক্তিযুদ্ধে আমাদের বিজয়ের পেছনে কাজ করেছিল মত-পথ-জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সবার এ যুদ্ধে অংশগ্রহণ। এ জন্যই সম্ভব হয়েছিল আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত শক্তিশালী পাকিস্তানি সেনাবাহিনীকে মাত্র নয় মাসে পরাজিত করা।

এখন আমাদের সামনে সম্ভাবনা অসীম। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ থেকে শিক্ষা নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে সব সমস্যা মোকাবেলায় সচেষ্ট হলে আমাদের অগ্রগতি ঘটবে দ্রম্নত। বিভেদ ভুলে আমরা সে পথেই অগ্রসর হবো- এই হোক বিজয় দিবসের অঙ্গীকার।

কে এম মাসুদুর রহমান: কলাম লেখক ও রাজনীতিক

 সম্পাদকীয় থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ