মঙ্গলবার , ১০ ডিসেম্বর ২০১৯ |

রোহিঙ্গা গণহত্যা: আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের বিচার শুরু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক   মঙ্গলবার , ১০ ডিসেম্বর ২০১৯

নেদারল্যান্ডসের হেগের পিস প্যালেসে রাখাইনে রোহিঙ্গা গণহত্যার অভিযোগে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিজে) গাম্বিয়ার দায়ের করা মামলার শুনানি শুরু হয়েছে।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় বেলা ৩টায় বহুল প্রতীক্ষিত এই বিচারের শুনানি শুরু হয়। আদালতে ১৫ জন বিচারপতির সঙ্গে যোগ দিয়েছেন দুজন অ্যাডহক বিচারপতি। ওই দুজন গাম্বিয়া ও মিয়ানমারের মনোনীত। আদালতের সিদ্ধান্ত হবে সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে।

শুনানিতে মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর শান্তিতে নোবেলজয়ী অং সান সু চি দেশটির পক্ষে উপস্থিত হয়েছেন। গাম্বিয়ার পক্ষে আছেন দেশটির আইনমন্ত্রী আবুবকর মারি তামবাদু। নেদারল্যান্ডস ও কানাডা গাম্বিয়ার পক্ষে তাদের সমর্থন জানিয়ে পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছে।

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নির্যাতনের শিকার হয়ে সর্বশেষ ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট দেশটি থেকে পালিয়ে আসা সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গার সাময়িক আশ্রয় দেওয়া ভুক্তভোগী দেশ বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধিদল তথ্য-উপাত্তসহ হাজির হচ্ছে পিস প্যালেসে। গাম্বিয়াকে তথ্য-প্রমাণ সরবরাহের পাশাপাশি বাংলাদেশ এ শুনানি পর্যবেক্ষণ করবে।

এর আগে আদালতে গত ১১ নভেম্বর পেশ করা আবেদনে গাম্বিয়া বলেছে, কথিত সাফাই অভিযানের সময় গণহত্যামূলক কর্মকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে, যেগুলোর উদ্দেশ্য ছিল গোষ্ঠীগতভাবে অথবা আংশিকভাবে রোহিঙ্গা জাতিকে নির্মূল করা। এজন্য গণহারে হত্যা, ধর্ষণ ও অন্যান্য যৌন সহিংসতা, কখনো কখনো বাড়িতে লোকজনকে আটকে রেখে জ্বালিয়ে দেওয়ার মাধ্যমে গ্রামগুলোকে ধ্বংস করেছে।

গাম্বিয়া গণহত্যাবিষয়ক আন্তর্জাতিক সনদের ৩ নম্বর ধারার আলোকে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে সনদ লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছে। গাম্বিয়া ও মিয়ানমার দুই দেশই ১৯৪৮ সালে গৃহীত এই সনদে স্বাক্ষরকারী এবং ওই ধারায় সনদ লঙ্ঘনবিষয়ক বিরোধ আইজিসেতে নিষ্পত্তির বিধান রয়েছে।

 সারাবিশ্ব থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ