মঙ্গলবার , ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০ |

জবির প্রধান ফটক যেনো মরন ফাঁদ

  মঙ্গলবার , ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০

জবি প্রতিনিধিঃ 
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) মূল ফটকের সামনের রাস্তা শিক্ষার্থীদের জন্য মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। কোন বিকল্প রাস্তা অথবা ফুটওভার ব্রিজ না থাকায় ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারাপার হতে হয় শিক্ষার্থীদের। প্রায়ই রাস্তা পার হতে গিয়ে নানা রকম দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা।
সরজমিনে দেখা যায়, প্রধান ফটকের সামনে চারটি রাস্তা মিলিত হয়ে চৌরাস্তার রূপ নিয়েছে। গুলিস্তান যাওয়ার জন্য টমটম অথবা লেগুনা জবির গেটের সামনের রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করে ও যাত্রাবাড়ী এবং ডেমরা যাওয়ার জন্য বাহাদুর শাহ পরিবহন এই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করে অবিরাম। এছাড়া নদী পথে (সদরঘাট) চলাচলকারী মানুষদের এবং পোস্তগোলা যাওয়ার জন্য এই রাস্তা ব্যবহৃত হয়। লক্ষ্মীবাজার হতে একটি রাস্তা এসে জবির সামনে মিলিত হয়েছে।
গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটি দিনের সিংহভাগ সময়ই থাকে যানজটে। তাছাড়াও যানজট এর অন্যতম কারণগুলা হলো, পাঠাও-এর বাইকগুলা ও রিক্সাগুলো গেটের ডান পাশে অবস্থান করে। বিভিন্ন ধরনের টং দোকান (লেবুপানি, দইচিড়া, কাবাব) রাস্তার দুইপাশ দখল করে রেখেছে। বাহাদুর শাহ পার্ক এর সংস্কার কাজ করার জন্য রাস্তার প্রায় অনেকাংশে যানজট লেগে থাকে। তাছাড়াও গেটের পাশেই ভিক্টর ক্লাসিক, সাভার পরিবহন, তানজিল, বিহঙ্গ, আজমেরী গ্লোরী, ৭নাম্বার বাস যাত্রী উঠা নামানোর কাজ করে।
বিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া বাংলা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী বরকত উল্লাহ বলেন- ‘ক্যাম্পাসের সামনের রাস্তাটি  আমাদের পারাপারের জন্য বেশ ঝুকিপূর্ণ । রিক্সা, মোটরবাইক, লেগুনা এখানে বেপরোয়া। গেটের সামনে আসলে যেন তাদের গতি বেড়ে যায়। রাস্তা পারাপার হতে খুব ভয় লাগে।প্রতিনিয়তই দুর্ঘটনার শিকার হতে হয় আমাদের এই রাস্তা পার হতে।
অন্যদিকে গনিত বিভাগের ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী জাহিদ হাসান  বলেন, ‘মূল ফটকের সামনের জ্যাম খুব মারাত্মক। শিট ফটোকপি কিংবা টিএসসিতে যাওয়ার জন্য রাস্তা পার হয়ে ২-৩ মিনিট সময় লেগে যায়।যত্রতত্র গাড়ির জন্য ধাক্কাধাক্কি করে দ্রুততার সাথে রাস্তা পার হতে হয় আমাদের। রাস্তা,পার হবার ক্ষেত্রে আমরা অসহায়।রাস্তার মাঝে গাড়ি গুলো এমন ভাবে দাড়িয়ে থাকে মাঝে মাঝে গাড়ির চিপা দিয়ে যেতে শার্ট প্যান্টে ময়লার দাগ লাগে।তিনি আরো বলেন একজন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসাবে এই বিষটি খুব বেদনা দায়ক।
এ ব্যাপারে প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল বলেন, গেটের সামনের নিরাপত্তা কর্মীদের বিশেষভাবে বলা আছে যেন শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের সময় কোন সমস্যা না হয়।বিশেষ করে সকালে ও ছুটির সময় ট্রাফিক-স্টাফদের প্রধান ফটকের সামনে যেন যানজট সৃষ্টির সমস্যা না হয় সেই বিষয়ে সজাগ থাকতে বলা হয়েছে।
এ ব্যাপারে কোতয়ালী জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি পেট্রোল) মো. ইকবাল হোসেন বলেন, গেটের সামনের যানজট নিরসনে ট্রাফিকদের বিশেষভাবে অবগত করা আছে এবং সবকয়টি পুলিশ বক্সে যানজট নিরসনে কাজ করতে বলা হয়েছে।

 উপ-সম্পাদকীয় থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ