শনিবার , ০৪ নভেম্বর ২০১৭

সিরাজুল ইসলাম শিশির, সিরাজঞ্জ থেকে:
সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে যৌতুক না দেয়ায় রুকসানা খাতুন (৩০) নামে নয় মাসের অন্তঃসত্তা এক গৃহবধূকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় তার স্বামী আব্দুল হামিদকে আটক করেছে পুলিশ।
 শনিবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার জামতৈল ইউনিয়নের কুড়া উদয়পুর গ্রামে স্বামীর বাড়ি থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত রুকসানা খাতুন (৩০) কামারখন্দ উপজেলার ভদ্রঘাট ইউনিয়নের বিয়ারা গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের মেয়ে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল গনি এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, গত ১৩ বছর আব্দুল হামিদের সাথে রুকসানার বিয়ে হয়। এর কিছুদিন পর স্ত্রীর কাছে ১ লাখ টাকা যৌতুক হিসেবে দাবি করেন স্বামী আব্দুল হামিদ। যৌতুকের টাকা দিতে স্ত্রীর পরিবার অস্বীকার করায় মাঝে মধ্যেই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া লেগেই থাকতো। যৌতুকের টাকা নিয়ে এলাকায় একাধিকবার মুরুব্বীগণ শালিসি বৈঠকও করেছেন। এরই একপর্যায়ে শুক্রবার রাতে নিজ ঘরে ৯ মাসের অন্তঃসত্তা স্ত্রী রুকসানাকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যা করে স্বামী। পরে স্ত্রীর মরদেহ ঘরের ভিতরে ঝুলন্ত রেখে আত্মহত্যা হিসেবে এলাকায় প্রচারণা চালায়। নিহতের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের একাধিক চিহ্ন রয়েছে বলে জানান ইউপি সদস্য।
নিহতের পিতা দেলোয়ার হোসেন জানান, বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই মেয়ের স্বামী আব্দুল হামিদ ১ লাখ টাকা যৌতুক হিসেবে চাপ দেয়। টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালেই মাঝে মধ্যে আমার মেয়েকে মারপিট করতো। এ নিয়ে এলাকার মুরুব্বীদের নিয়ে কয়েকবার দরবারও হয়েছে।
কামারখন্দ থানার ওসি আবু ওবায়দা জানান, এটি হত্যা না আত্মহত্যা ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর বিস্তারিত জানা যাবে। এ ঘটনায় নিহতের পিতা বাদী হয়ে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

 আইন-শৃংখলা থেকে আরোও সংবাদ

আর্কাইভ