শনিবার , ২৩ অক্টোবর ২০২১ |

মোঃ ফরিদুল হাসান ফরিদ, মুন্সীগঞ্জ থেকে 
মুন্সীগঞ্জে চিতলিয়া বাজারের স্বর্ণের দোকানের ডাকাতির জট খোলছে। ধরা পড়েছে ৮ ডাকাত ও উদ্ধার করা হয়েছে ডাকাতি করা স্বর্ণ ও । ডাকাতদের কাছ থেকে স্বর্ণ কেনার হোতা ও গ্রেফতার হয়েছে কিন্তু ইনফরমার এখনো আড়ালে রয়েছে। যারা ডাকাতির সকল তথ্য ও প্রয়োজনীয় সহ যোগিতা করেছে তাদের কেও আইনের আওতায় আনা হবে ।
মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চিতলিয়া বাজারে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির ঘটনায় অস্ত্র, স্বর্ণালংকার ও সঙ্গবন্ধ ডাকাত চক্রের ৮জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত একটি স্পিডবোটও জব্দ করা হয়। এসময় ডাকাতির মালামাল ক্রয়কারীকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। 
সোমবার পৌনে ১২টার দিকে মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন (পিপিএম)। 
সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, ডাকাতির ঘটনার পরই অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) সুমন দেব এর নেতৃত্বে গোয়েন্দা ও পুলিশ মুন্সীগঞ্জের মাওয়া, মাদারীপুরের শিবচর, শরিয়তপুরের জাজিরা, ঢাকার যাত্রাবাড়ী, গুলিস্তান, কামরাঙ্গিরচর, কেরানীগঞ্জ, বাবুবাজার, তাঁতিবাজার ও নারায়নগঞ্জের বন্দর এলাকায় যৌথ অভিযান পরিচালনা করে তাদের ধরতে সক্ষম হন। এ সময় ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত ১টি স্পিড বোট সহ, ৬৯ভরি স্বর্ণালংকার, ১টি ম্যাগাজিনসহ পিস্তল, ১ রাউন্ড গুলি, ৪ রাউন্ট শর্টগানের গুলি, ১টি চাপাতি ও ১৫ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। তবে ডাকাত দলের ৮জনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেন।
পুলিশ সুপার আরোও বলেন, ডাকাত চক্রটি মুন্সীগঞ্জ, চাঁদপুর, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জসহ নদী সংলগ্ন বিভিন্ন জেলায় ডাকাতি করে আসছিলেন। চক্রের বাকি সদস্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এছাড়া লুট হওয়া বাকি স্বর্ণালংকার উদ্ধারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। 
জানা যায় ডাকাতরা বিভিন্ন জেলার মোঃ সাব্বির হোসেন ওরফে হাত কাটা স্বপন (৪৯), আরিফ হাওলাদার (২৫), মোহাম্মদ আলী (৪০), মো. বিল্লাল মোল্লা (৩০), মো. আনোয়ার হোসেন (৩২), মোঃ ফারুক খা (২১), মো. আফজাল হোসেন (৪৭) ও স্বর্ণ ক্রয়কারী দোকানদার মোঃ আক্তার হোসেন (৩২)। গ্রেফতারকৃতরা শরীয়তপুর, চাঁদপুর ও মাদারীপুর জেলার বাসিন্দা। 
উল্লেখ্য, গত ১৫ই সেপ্টেম্বর দিনগত রাত আড়াইটার দিকে মুন্সীগঞ্জের চিতলিয়া বাজারে দুটি স্বর্ণের দোকানে দূর্ধষ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আনুমানিক ১০৭ভরি স্বর্ণ ও ৪০ লক্ষাধিক টাকা লুট করা হয়েছে বলে জানান দোকান মালিকরা। পরে নিখিল বনিক স্বর্ণ শিল্পালয়ের মালিক রিপন বনিক বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় অজ্ঞাত ১৮-২০জনের নামে ডাকাতির মামলা করেন। ঘটনার চারদিনের মধ্যে ডাকাতদের গ্রেফতার ও উদ্ধার করে পুলিশ।  

 সারা বাংলা থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ