শনিবার , ২৩ অক্টোবর ২০২১ |

অভিনেতা ইনামুল হক মারা গেছেন

দেশকাল বিনোদন ডেস্ক:   সোমবার , ১১ অক্টোবর ২০২১

অভিনেতা, নাট্যকর, নির্দেশক ইনামুল হক আর নেই। আজ বিকেল ৪টায় বেইলি রোডের বাসায় তিনি মারা যান। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্নইলাহি রাজিউন । তাঁর মৃত্যুর খবরটি প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেছেন তাঁর জামাতা অভিনেতা লিটু আনাম।

অভিনেতা ইনামুল হক আর নেই। আজ বিকেল ৪টায় বেইলি রোডের বাসায় তিনি মারা গেছে। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন । তাঁর মৃত্যুর খবরটি প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেছেন জামাতা অভিনেতা লিটু আনাম। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী এবং দুই মেয়েকে রেখে গেছেন।

 ইনামুল হকের জন্ম ১৯৪৩ সালের ২৯ মে ফেনী সদরের মটবী এলাকায়। তার বাবা ওবায়দুল হক ও মা রাজিয়া খাতুন। ইনামুল হকের পুরো পরিবারই নাটকের সঙ্গে জড়িয়ে আছেন। তার স্ত্রী লাকী ইনাম নাটকের জগতেরই মানুষ। তাদের সংসারে দুই মেয়ে হৃদি হক (স্বামী লিটু আনাম) আর প্রৈতি হক (স্বামী সাজু খাদেম)।

ফেনী পাইলট হাইস্কুল থেকে এসএসসি, ঢাকার নটর ডেম কলেজ থেকে এইচএসসি এবং পরবর্তীকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগ থেকে তিনি অনার্স ও এমএসসি সম্পন্ন করেন। পরবর্তীতে মানচেস্টার ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি লাভ করেনন ড. ইনামুল হক।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি দীর্ঘ ৪৩ বছর শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত থাকার সময় ১৫ বছর রসায়ন বিভাগের চেয়ারম্যান এবং দুই বছর ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ডিন হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। নটরডেম কলেজে পড়াশোনাকালীন তিনি প্রথম মঞ্চে অভিনয় করেন।

ফাদার গাঙ্গুলীর নির্দেশনায় তখন তিনি ‘ভাড়াটে চাই’ নাটকে প্রথম অভিনয় করেন । ১৯৬৮ সালে প্রতিষ্ঠিত ‘নাগরিক নাট্যসম্প্রদায়’র অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন তিনি । দলটির ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন ড. ইনামুল হক। এই দলের হয়ে প্রথম তিনি মঞ্চে অভিনয় করেন আতাউর রহমানের নির্দেশনায় ‘বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রো’ নাটকে ।

এরপর এই দলের হয়ে ‘দেওয়ান গাজীর কিসসা’, ‘নূরুল দীনের সারা জীবন’সহ আরো বহু নাটকে অভিনয় করেন । ১৯৯৫ সালে তিনি এই দল থেকে বের হয়ে প্রতিষ্ঠিত করেন ‘নাগরিক নাট্যাঙ্গন’ । বর্তমানে দলটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন গুণী এই নাট্যজন।

 বিনোদন থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ