মঙ্গলবার , ২৯ নভেম্বর ২০২২

অপহরণ হওয়া জেমি ফিরে পেল বাবা-মাকে

চট্টগ্রাম ব্যুরো   বুধবার , ২৩ নভেম্বর ২০২২

মোঃ শাহরিয়ার রিপন , চট্টগ্রাম 

চট্টগ্রাম  : নানীর সঙ্গে ট্রেনে করে লাকসামথেকে চট্টগ্রামে আসছিলেন তিন বছরের শিশু জেমি। জেমি কান্না করার সুযোগে তার নানীরসঙ্গে মো. জয়নাল আবেদীন প্রকাশ সুমন (২৭) নামে এক ব্যক্তির পরিচয় হয়। আলাপ-আলোচনারমধ্যেই তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। ঘনিষ্ঠতার এক পর্যায়ে শিশুটির নানী চট্টগ্রামেরবন্দর থানার কলসিদিঘীপাড় এলাকায় মেয়ের বাসায় যাবে বলে জানায়। ওই ব্যক্তিও একইএলাকায় যাওয়ার কথা বলে জেমির নানীর বিশ্বস্ততা অর্জন করে। এমনকি কৌশলে শিশুটিকেনিজের কোলে নিয়ে নেন।

চট্টগ্রামে আসার পর তারা বাসেকরে নগরের কলসিদিঘীপাড় এলাকায় এসে নামেন। এরপর শিশুটির নানী ও সুমন এক সঙ্গেহাঁটতে থাকেন। নানীর হাঁটতে কষ্ট হওয়ায় শিশুটি তখনও ওই ব্যক্তির কাছে ছিল।কিছুক্ষণ হাঁটার পর সুমন নামে ওই ব্যক্তি বাচ্চাটি নিয়ে সুযোগ বুঝে দৌড়ে পালিয়েযায়। এরপর খোঁজাখুঁজি করেও তাকে না পাওয়ায় ওই শিশুর বাবা থানায় মামলা করেন। গেল ২২ সেপ্টেম্বর শিশুটিঅপরহরণের শিকার হয়। দুই মাস পরে শিশুটিকে ফেনীর সদর থানা এলাকা থেকে উদ্ধার করাহয়েছে। একই সঙ্গে অপহরণের সঙ্গে ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। দীর্ঘদিন পরসন্তানকে ফিরে আসায় জেমির মা-বাবার চোখে-মুখে হাসির ঝলক। বুধবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরেসংবাদ সম্মেলনে এসে এমন তথ্যের কথা জানিয়েছেন সিএমপির উপপুলিশ কমিশনার শাকিলাফারজানা।


এর আগে গতকাল মঙ্গলবারজোরারগঞ্জ থানার বারইয়ার হাট এলাকা থেকে অপহরকারীকে গ্রেফতার করা হয়। সুমন ফেনীজেলার সদর থানার ৮ নম্বর ধলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ডের নুরুল আমিনেরছেলে। তার বাড়ি ফেনীতে হলেও, তিনি নগরের ইপিজেডে ইয়াংগুন কারখানার মিস্ত্রী বলেজানিয়েছে পুলিশ।

 

সংবাদ সম্মেলনে সিএমপিরউপপুলিশ কমিশনার শাকিলা ফারজানা বলেন,ট্রেনে জেমির নানী ও অপহরণকারী একসঙ্গে ছিলেন। তারা চট্টগ্রামে আসার পর একই এলাকায় যাওয়ার জন্য গাড়িতে উঠেন।কলসিদীঘি এলাকায় নামার পর সুযোগ বুঝে বাচ্চাটিকে নিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় আমাদেরকাছে কোনো ক্লু ছিল না। একটি সিসিটিভি ফুটেজ ছিল। সোর্সের মাধ্যমে জানতে পারিশিশুটি ফেনীতে রয়েছে। এরপর তার ছবি পাঠাতে বলি। কিন্তু ছবি দেখে শিশুটিকে চিহ্নিতকরা যাচ্ছিল না। এক পর্যায়ে সেখানে ফোর্স পাঠিয়ে আবারও যাচাই-বাছাই করা হয়। পরেআমেনা আক্তার নামে এক গৃহিনীর কাছে লালন-পালনের খবর পাই।

 

সিএমপির এই কর্মকর্তা আরও বলেন, বিবাহিতজীবনে নিঃসন্তান দম্পতি শিশুটিকে অপহরণ করে নিয়ে আসার বিষয়ে কিছুই জানতো না।গ্রেফতার সুমন পেশাদার কোনো অপরহরকারী নয়। সে শহরে কাজ করার সুবাধে পরিবারটিরসঙ্গে তার পরিচয় হয়। পরিবারটি তার কাছে শিশু দত্তক নেওয়ার কথা জানিয়েছিল। সে ভাবনাথেকে শিশুটিকে অপরহরণ করে ৩০ হাজার টাকায় ওই পরিবারের কাছে দত্তক দেয়। শিশুটিকেনিজের শ্যালিকার মেয়ে বলে জানায়। গ্রেফতার অপহরণকারীকে আদালতে সোর্পদ করারপ্রক্রিয়া চলছে ।এ সময় সংবাদ সম্মেলনে শিশুটির মা-বাবা উপস্থিত ছিলেন।

 

নানীর সঙ্গে ট্রেনে করে লাকসামথেকে চট্টগ্রামে আসছিলেন তিন বছরের শিশু জেমি। জেমি কান্না করার সুযোগে তার নানীরসঙ্গে মো. জয়নাল আবেদীন প্রকাশ সুমন (২৭) নামে এক ব্যক্তির পরিচয় হয়। আলাপ-আলোচনারমধ্যেই তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। ঘনিষ্ঠতার এক পর্যায়ে শিশুটির নানী চট্টগ্রামেরবন্দর থানার কলসিদিঘীপাড় এলাকায় মেয়ের বাসায় যাবে বলে জানায়। ওই ব্যক্তিও একইএলাকায় যাওয়ার কথা বলে জেমির নানীর বিশ্বস্ততা অর্জন করে। এমনকি কৌশলে শিশুটিকেনিজের কোলে নিয়ে নেন।

 

চট্টগ্রামে আসার পর তারা বাসেকরে নগরের কলসিদিঘীপাড় এলাকায় এসে নামেন। এরপর শিশুটির নানী ও সুমন এক সঙ্গেহাঁটতে থাকেন। নানীর হাঁটতে কষ্ট হওয়ায় শিশুটি তখনও ওই ব্যক্তির কাছে ছিল।কিছুক্ষণ হাঁটার পর সুমন নামে ওই ব্যক্তি বাচ্চাটি নিয়ে সুযোগ বুঝে দৌড়ে পালিয়েযায়। এরপর খোঁজাখুঁজি করেও তাকে না পাওয়ায় ওই শিশুর বাবা থানায় মামলা করেন।

 

গেল ২২ সেপ্টেম্বর শিশুটিঅপরহরণের শিকার হয়। দুই মাস পরে শিশুটিকে ফেনীর সদর থানা এলাকা থেকে উদ্ধার করাহয়েছে। একই সঙ্গে অপহরণের সঙ্গে ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। দীর্ঘদিন পরসন্তানকে ফিরে আসায় জেমির মা-বাবার চোখে-মুখে হাসির ঝলক। বুধবার (২৩ নভেম্বর)দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এসে এমন তথ্যের কথা জানিয়েছেন সিএমপির উপপুলিশ কমিশনারশাকিলা ফারজানা।

 

এর আগে গতকাল মঙ্গলবারজোরারগঞ্জ থানার বারইয়ার হাট এলাকা থেকে অপহরকারীকে গ্রেফতার করা হয়। সুমন ফেনীজেলার সদর থানার ৮ নম্বর ধলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ডের নুরুল আমিনেরছেলে। তার বাড়ি ফেনীতে হলেও, তিনি নগরের ইপিজেডে ইয়াংগুন কারখানার মিস্ত্রী বলেজানিয়েছে পুলিশ।

 

সংবাদ সম্মেলনে সিএমপিরউপপুলিশ কমিশনার শাকিলা ফারজানা বলেন,ট্রেনে জেমির নানী ও অপহরণকারী একসঙ্গে ছিলেন। তারা চট্টগ্রামে আসার পর একই এলাকায় যাওয়ার জন্য গাড়িতে উঠেন।কলসিদীঘি এলাকায় নামার পর সুযোগ বুঝে বাচ্চাটিকে নিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় আমাদেরকাছে কোনো ক্লু ছিল না। একটি সিসিটিভি ফুটেজ ছিল। সোর্সের মাধ্যমে জানতে পারিশিশুটি ফেনীতে রয়েছে। এরপর তার ছবি পাঠাতে বলি। কিন্তু ছবি দেখে শিশুটিকে চিহ্নিতকরা যাচ্ছিল না। এক পর্যায়ে সেখানে ফোর্স পাঠিয়ে আবারও যাচাই-বাছাই করা হয়। পরেআমেনা আক্তার নামে এক গৃহিনীর কাছে লালন-পালনের খবর পাই।

 

সিএমপির এই কর্মকর্তা আরও বলেন, বিবাহিতজীবনে নিঃসন্তান দম্পতি শিশুটিকে অপহরণ করে নিয়ে আসার বিষয়ে কিছুই জানতো না।গ্রেফতার সুমন পেশাদার কোনো অপরহরকারী নয়। সে শহরে কাজ করার সুবাধে পরিবারটিরসঙ্গে তার পরিচয় হয়। পরিবারটি তার কাছে শিশু দত্তক নেওয়ার কথা জানিয়েছিল। সে ভাবনাথেকে শিশুটিকে অপরহরণ করে ৩০ হাজার টাকায় ওই পরিবারের কাছে দত্তক দেয়। শিশুটিকেনিজের শ্যালিকার মেয়ে বলে জানায়। গ্রেফতার অপহরণকারীকে আদালতে সোর্পদ করারপ্রক্রিয়া চলছে ।এ সময় সংবাদ সম্মেলনে শিশুটির মা-বাবা উপস্থিত ছিলেন। এই অপহরণমামলার তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন এসআই মোহসীন

দৈনিক দেশকাল / আরএ / ২৩ নভেম্বর,২০২২

 আইন-অপরাধ থেকে আরোও সংবাদ

ই-দেশকাল

আর্কাইভ